মুম্বইয়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০,০০০ পেরলো, দিল্লিতে পেরলো ৫,০০০

বিশেষজ্ঞদের দাবি., আগামী ৪ থেকে ৬ সপ্তাহের মধ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে

মুম্বইয়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০,০০০ পেরলো, দিল্লিতে পেরলো ৫,০০০

মঙ্গলবার মুম্বইয়ে করোনা ভাইরাস (Coronavirus) আক্রান্তের সংখ্যা ৬৩৫ জন

মুম্বই/নয়াদিল্লি:

মঙ্গলবার মুম্বইয়ে করোনা ভাইরাস (Coronavirus) আক্রান্তের সংখ্যা ৬৩৫ জন, ফলে দেশের বাণিজ্যনগরীতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৯,৯৪৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মুম্বইয়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে, ফলে মোট মৃতের সংখ্যা ৩৮৭ জন, এমনটাই জানিয়েছেন আধিকারিকরা। দিল্লিতে মঙ্গলবার করোনা আক্রান্ত ২০৬ জন, ফলে দেশের রাজধানীতে মোট আক্রান্ত ৫,১০৪ জন। মহারাষ্ট্রে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ১৫,৫২৫ জন, মঙ্গলবার ৮৪১ জন করোনা আক্রান্ত। মৃতের সংখ্যা ৬১৭ জন। দেশজুড়ে (Coronavirus India) মঙ্গলবার ৩,৯০০ করোনা আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে, মৃতের সংখ্যা আরও ২০০ বেড়ে ১,৫০০ ছাড়িয়েছে।

করোনা ভাইরাস নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে কেন্দ্রীয়. স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১,৫৮৩ জন, যার মধ্যে সোমবার সন্ধ্যা থেকে ১৯৪ জন মৃতের খবর পাওয়া গিয়েছে। সংক্রমিতের সংখ্যা ৩,৮৭৫ জন বেড়়ে গিয়ে মোট পরিসংখ্যান হয়েছে ৪৬,৭১১ জন।

মঙ্গলবার তামিলনাড়ুতে নতুন করে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ৫০০ জন, ফলে সে রজ্যে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ৪,০০০ জন, গুজরাটে আরও ৪৪১ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ মিলেছে. ফলে  সে রাজ্যে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ৬,২০০ ছাড়িয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের দাবি., আগামী ৪ থেকে ৬ সপ্তাহের মধ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে, শীতকালে আবারও করোনার ছোবল আসতে পারে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

পরিসংখ্যাল বলছে, গত এক সপ্তাহে দেশের মোট আক্রান্তের এক তৃতীয়াংশের সংক্রমণ হয়েছে, যেগুলি এসেছে মহারাষ্ট্র, গুজরাট, তামিলনাড়ু, মধ্যপ্রদেশ এবং দিল্লির মতো শহরগুলি থেকে।

সরকারি আধিকারিকরা জানিয়েছেন, গোষ্ঠী সংক্রমণ রুখতে সক্ষম হয়েছে ভারত, পাশাপাশি করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় সুবিধাজনক জায়গায় রয়েছে, যদিও কার্যক্ষেত্রে কোনওরকম শিথিলতার না করার ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের যুগ্ম সচিব লাভ আগরওয়াল বলেন, “এখনও পর্যন্ক করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় আমরা সুবিধাজনক জায়গায় রয়েছি, তবে কার্যক্ষেত্রে বা সহযোগিতায় কোনওরকম ঘাটতি হলে তা ব্যাঘাত হতে পারে”।