This Article is From Apr 19, 2020

“কোভিড ১৯ জাতি, ধর্ম, বর্ণ দেখে আসে না”, বললেন প্রধানমন্ত্রী মোদি

Coronavirus: লিঙ্কডিনের পোস্টে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি লেখেন, “ভারতের পরবর্তী চিন্তাভাবনা হওয়া উচিত আন্তর্জাতিক প্রাসঙ্গিকতা এবং ব্যবহার নিয়ে”

Coronavirus:প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, “ভবিষ্যত হবে একত্রিত এবং সহনশীলতার”

নয়াদিল্লি:

করোনা ভাইরাস অতিমারী (COVID-19)  সবাইকে সমানভাবে আক্রমণ করে, রবিবার এমনটাই জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi) । লিঙ্কডিনে পোস্টে প্রধানমন্ত্রী লেখেন, “কোভিড ১৯ জাতি, ধর্ম, বর্ণ, ভাষা, সীমা দেখে আসে না। আমাদের প্রত্যুত্তর এবং তারপরে ব্যবহার বা আচার হওয়া উচিত একতা ও সৌভ্রাতৃত্ব। আমরা এই জায়গায় সবাই একত্রিত”। তিনি লেখেন, “ইতিহাসে আগের মতো না করে, যখন সমাজ এবং দেশ একে অপরের বিরুদ্ধে লড়াই করত, আজ সবাই এক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। ভবিষ্যত হবে একতা এবং সহনশীলতার”। তাঁর কথায়, “ভারতের পরবর্তী চিন্তাভাবনা হওয়া উচিত আন্তর্জাতিক প্রাসঙ্গিকতা এবং ব্যবহার নিয়ে । তাঁদের একটি ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে হবে শুধুমাত্র ভারতের জন্যই নয়, পুোর মানবসভ্যতার জন্য”।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ট্যুইটে আরও লেখেন, “আগে রশদ দেখা যেত গঠনগতভাবে, রাস্তা, মজুতঘর, বন্দরগুলি। তবে এই সময়ে বিশেষজ্ঞরা, আন্তর্জাতিকভাবে সরবরাহ নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন, তাঁদের বাড়ি থেকেই”।

তাঁর কথায়, “ভারত সঠিকভাবে গঠনগত ও অভ্যন্তরীণের সঠিক মিশ্রণে, বর্তমান সময়ে করোনা ভাইরাস পরবর্তী সময়ে, ভারত এখনকার জটিল সরবরাহের একটি ভরকেন্দ্র হয়ে উঠতে পারে। আমাদের সেই বিষয়টি তুলে ধরতে হবে এবং সুযোগটি নিতে হবে। আমি আপনাদের আহ্বান করছি, এটা নিয়ে ভাবতে”।

একদিন আগেই, উত্তরপ্রদেশে একটি হাসপাতালের তরফে কাগজে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে, সেই হাসপাতালে মুসলিমদের করোনা ভাইরাস পরীক্ষার পরেই ভর্তি করা হবে, তার একদিন পরেই এই বার্তা প্রধানমন্ত্রী মোদির।

তবলিঘি জামাতের কারণে, দিল্লির নিজামুদ্দিন করোন ভাইরাসের হটস্পট হয়ে উঠেছে, সেখানকার হাজারখানেক সদস্যের করোনা ভাইরাস ধরা পড়েছে। পরে একটি মুসলিন সংগঠন সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়, নিজামুদ্দিনের ঘটনাকে সংবাদমাধ্যম যাতে সাম্প্রদায়িক রং না লাগায়, তার আবেদন জানানো হয়, তাদের তরফে।

ভারতে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ১৫, ৭১২, তারমধ্যে মৃতের সংখ্যা  ৫০৭ বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। আইসিএমআর জানিয়েছে, দেশে ১৬,৩৬৫ করোনা আক্রান্ত রয়েছে, যা স্বাস্থ্যমন্ত্রকের থেকে বেশি।