This Article is From Mar 23, 2020

এক যাত্রী করোনা আক্রান্ত, এই সন্দেহে বিমানের জানলা গলে বাইরে ঝাঁপ পাইলটের

Coronavirus: এয়ার এশিয়ার যে বিমানটি তিনি চালাচ্ছেন তাতেই সওয়ার হয়েছেন এমন এক যাত্রী যাঁর শরীরে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ রয়েছে, জানার পরই ঘাবড়ে যান পাইলট

এক যাত্রী করোনা আক্রান্ত, এই সন্দেহে বিমানের জানলা গলে বাইরে ঝাঁপ পাইলটের

Air Asia: বিমানের মধ্যেই করোনার লক্ষণ যুক্ত যাত্রী, জানার পরেই অন্য যাত্রীরাও আতঙ্কিত হয়ে পড়েন

হাইলাইটস

  • করোনা আতঙ্কে ভুগছে গোটা বিশ্ব, ভারতেও বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা
  • গোটা বিশ্বে ১১ হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন
  • ভারতে করোনা ভাইরাসের কারণে মৃত্যু হয়েছে ৭ জনের
নয়া দিল্লি:

কথায় বলে, "আপনি বাঁচলে বাপের নাম"। অনেকটা এমনই ঘটনা দেখা গেল বিমানের এক পাইলটের ক্ষেত্রে। এমনতিতেই এখন জলজ্যান্ত আতঙ্কের একটাই নাম "করোনা ভাইরাস"। দেশে বাড়ছে এই রোগে (Coronavirus) আক্রান্তের সংখ্যা, বিভিন্ন রাজ্যে লকডাউন পরিস্থিতি চলছে। মানুষ ভয়ে (Corona in India) সিঁটিয়ে রয়েছেন ঘরে। আর এই করোনার ভয় এতটাই ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করেছে যে এয়ার এশিয়ার (Air Asia) পুনে থেকে দিল্লিগামী একটি বিমানের পাইলট পর্যন্ত ছেলেমানুষের মতো কাজ করে বসলেন। এয়ার এশিয়ার যে বিমানটি তিনি চালাচ্ছেন তাতেই সওয়ার হয়েছেন এমন এক যাত্রী যাঁর শরীরে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ রয়েছে, জানার পরই ঘাবড়ে যান পাইলট। ভয় পেয়ে গেছিলেন ওই বিমানে সওয়ার অন্য যাত্রী এবং বিমানের অন্যান্য কর্মীরাও। কিন্তু পাইলট যা করলেন তা একরকম নজিরবিহীন। বিমানটি অবতরণের পর তাঁর সাধারণ দরজা দিয়ে না বেরিয়ে পাইলট-ইন-কমান্ড বেছে নিলেন ককপিটের "সেকেন্ড এক্সিট" অর্থাৎ দ্বিতীয় দরজা দিয়ে রীতিমতো বাইরে ঝাঁপ দিলেন তিনি।

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৩৯৬,, রবিবারই আক্রান্তের সংখ্যা ৮১

২০ মার্চ এয়ার এশিয়ার বিমানটিতে ওই কাণ্ড ঘটে। ঘটনাটি ঘটে পুনে থেকে দিল্লিগামী এয়ার এশিয়ার বিমান ভারতের বিমান I5-732 তে। যদিও বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষও কোনও ঝুঁকি নিতে চায়নি। ওই বিমানের সব যাত্রীদের বিমানবন্দরেই প্রাথমিক স্ক্রিনিং করা হয়। যদিও তাতে সকলের ক্ষেত্রেই করোনা নেগেটিভ ধরা পড়ে। এই ঘটনাটির বিষয়ে এয়ার এশিয়া ইন্ডিয়ার একজন মুখপাত্র বলেছেন, "২০ মার্চ, ২০২০, COVID-19 এর লক্ষণ যুক্ত এক যাত্রী I5-732 বিমানটি করে পুনে থেকে নয়া দিল্লি আসেন।"

জানা গেছে, করোনা লক্ষণ যুক্ত ওই যাত্রী বিমানের একেবারে প্রথম সারিতেই বসেছিলেন, আর তাঁকে নিয়েই আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয় গোটা বিমানে। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর নিরাপত্তার খাতিরে বিমানটি অবতরণের পরে সেটিকে আলাদা জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেটিকে স্যানিটাইজ করা হয়।

লকডাউন, ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ ট্রেন, বাস, মেট্রো পরিষেবা

এয়ার এশিয়ার মুখপাত্র বলেছেন, "আমাদের ক্রুরা এই জাতীয় ঘটনায় কী করতে হবে তার জন্য যথেষ্ট প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। এর পাশাপাশি আমরা জানাতে চাই যে, আমরা বর্তমান পরিস্থিতির মধ্যেও অত্যন্ত যত্ন সহকারে যাত্রীদের পরিষেবা দিতে চাই"।