বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে কত কম খরচে করোনা চিকিৎসা সম্ভব? জানতে চাইলো আদালত

Coronavirus: ২০১৭ সালে আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি

বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে কত কম খরচে করোনা চিকিৎসা সম্ভব? জানতে চাইলো আদালত

Coronavirus: করোনা রোগীদের চিকিৎসায় কম অঙ্কের টাকার বিল করুক বেসরকারি হাসপাতালগুলো, এই মর্মে আবেদন জমা পড়ে আদালতে

হাইলাইটস

  • করোনা চিকিৎসায় কত খরচ নিচ্ছে বেসরকারি হাসপাতালগুলো, প্রশ্ন আদালতের
  • কম খরচে ওই চিকিৎসা করা যায় কিনা সেবিষয়ে কেন্দ্র ও হাসপাতালগুলোর জবাব তলব
  • এই প্রসঙ্গে আয়ুষ্মান প্রকল্পের প্রসঙ্গও তুললো সুপ্রিম কোর্ট
নয়া দিল্লি:

করোনা ভাইরাসের (Coronavirus) চিকিৎসাতেও কি আয়ুষ্মান ভারত (Ayushman Bharat) প্রকল্পে ধার্য খরচ মেনেই কি বিল করছে বেসরকারি হাসপাতাল? প্রশ্ন করল শীর্ষ আদালত। এই বিষয়ে বেসরকারি হাসপাতালগুলির একটি সংগঠন এবং কেন্দ্রের কাছ থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে জবাব তলব করলো সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court)। করোনা রোগীদের চিকিৎসায় কম অঙ্কের টাকার বিল করুক বেসরকারি হাসপাতালগুলো, এই মর্মে আবেদন জমা পড়ে আদালতে, সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতেই শুক্রবার ওই পদক্ষেপ করলো দেশের সর্বোচ্চ আদালত।২০১৭ সালে এই আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই সময় প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন যে, সরকারের সাশ্রয়ী মূল্যের এই বীমা প্রকল্পের ফলে লাভবান হবেন দেশের মানুষ।

সরকারের সেই ঘোষণার কথা মনে রেখেই এবার দেশের শীর্ষ আদালত জানতে চাইলো যে, আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের অধীনে থাকা কোনও রোগী যদি করোনা আক্রান্ত হয়ে কোনও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয় তবে কি তাঁকেও কম খরচে চিকিৎসা করা হবে? 

করোনা সঙ্কটের কারণে চলতি বছরে কোনও নতুন প্রকল্প নয়, জানিয়ে দিল সরকার

অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় দেশের চিকিৎসা পরিষেবার উন্নতির লক্ষ্যে বেসরকারি হাসপাতাল বানানোর জন্যে বিনামূল্যে জমি বরাদ্দ করে সরকার। সেই প্রসঙ্গের কথা উল্লেখ করে সুপ্রিম কোর্টে একটি মানবিক আবেদন করেন আবেদনকারী শচীন জৈন। তাঁর আবেদনে বলা হয় যে, বিনামূল্যে দেওয়া জমিতে নির্মিত বেসরকারি হাসপাতালগুলিতে অন্তত যাতে করোনা ভাইরাসের চিকিৎসা কম খরচে করা যায় সেবিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকার এবং বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিক শীর্ষ আদালত। শচীন জৈন আরও বলেন যে, বেসরকারি হাসপাতালগুলো যদি করোনা চিকিৎসার ক্ষেত্রে ব্যবসায়িক বা লাভজনক দৃষ্টিভঙ্গী না রেখে শুধুমাত্র চিকিৎসার প্রকৃত খরচের ভিত্তিতে বিল করে তবে অনেক কম টাকা দিতে হয় রোগীর পরিবারকে।

করোনা সতর্কতায় ধর্মীয় স্থানগুলোতে বন্ধ থাকছে প্রসাদ ও চরণামৃত বিতরণ, গাওয়া যাবে না প্রার্থনা সঙ্গীতও

গত কয়েকদিনে ভারতে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় মন্ত্রকের সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান বলছে, দেশে গত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ওই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৯৮৫১ জন, আর মারা গেছেন ২৭৩ জন। সব মিলিয়ে সারা দেশে এখনও পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত মোট ২,২৬,৭৭০ জন। করোনা ভাইরাস এদেশে প্রাণ কেড়েছে মোট ৬,৩৪৮ জনের।