২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৭৮,৫১২ জন, মোট সংক্রমিত ৩৬ লক্ষেরও বেশি

Coronavirus: পরিসংখ্য়ান বলছে, ভারতে করোনা মুক্তির হার বেড়ে ৭৬.৪৭ শতাংশে পৌঁছেছে, সব মিলিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন মোট ২৭,৭৪,৮০২ জন

২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৭৮,৫১২ জন, মোট সংক্রমিত ৩৬ লক্ষেরও বেশি
নয়া দিল্লি:

দেশে করোনা (Coronavirus) সংক্রমিতের মোট সংখ্যা দেখতে দেখতে ৩৬ লক্ষ ছাড়িয়ে গেলো। সোমবার প্রকাশিত কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুসারে, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৭৮,৫১২ জনের শরীরে বাসা বেঁধেছে ওই ভয়ঙ্কর সংক্রামক রোগটি (Coronavirus in India)। রবিবার সারা দিনে ৯৭১ জনের প্রাণ কেড়েছে করোনা ভাইরাস। ফলে ভারতে করোনা ভাইরাস সোমবার সকাল পর্যন্ত প্রাণ কেড়েছে মোট ৬৪,৪৬৯ জনের। তবে একথাও ঠিক যে, চিকিৎসা সহায়তায় বহু মানুষ সুস্থও হয়ে উঠছেন। পরিসংখ্য়ান বলছে, ভারতে করোনা মুক্তির হার বেড়ে ৭৬.৪৭ শতাংশে পৌঁছেছে। সব মিলিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন মোট ২৭,৭৪,৮০২ জন। মোট কোভিড (Covid-19) আক্রান্তের হিসাবে বিশ্ব তালিকায় ৩ নম্বরে রয়েছে এই দেশ, ভারতের আগে রয়েছে ব্রাজিল ও শীর্ষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। তবে দেখা যাচ্ছে গত ৪ অগাস্ট থেকে বিশ্বে সাম্প্রতিক দৈনিক সংক্রমণের বিচারে শীর্ষে রয়েছে ভারত।

বর্তমানে দেশে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা হলো ৭,৮১,৯৭৫ জন। অর্থাৎ মোট সংক্রমণের ২১.৫৯ শতাংশ মানুষ এখনও করোনায় ভুগছেন।

ভারতে মোট কোভিড সংক্রমণ ৩৬ লক্ষের সীমারেখা পার করতে মোট ২১৪ দিন সময় নিয়েছে। গত এক সপ্তাহে দেশে ৫ লক্ষেরও বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মহারাষ্ট্র, অন্ধ্রপ্রদেশ, কর্নাটক, তামিলনাড়ু এবং উত্তরপ্রদেশে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক তাজা সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে। এই পাঁচটি রাজ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুও ঘটেছে বলে জানিয়েছে সরকারি তথ্য।

এদিকে রবিবারই কেন্দ্র আনলক ৪ এর সম্পূর্ণ নির্দেশিকা ঘোষণা করেছে। এখন থেকে কনটেইনমেন্ট জোন ছাড়া কোথাও সাধারণত লকডাউন হবে না। কোনও রাজ্য আলাদাভাবে লকডাউন করতে চাইলে তার নির্দিষ্ট কারণ দেখিয়ে কেন্দ্রের থেকে অনুমতি নিতে হবে। আগামী ৭ সেপ্টেম্বর থেকে ধাপে ধাপে মেট্রো পরিষেবা চালুর কথাও বলেছে মোদি সরকার।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রথম নজরে আসে গত বছরের ডিসেম্বরে। চিন থেকেই এই রোগ সারা বিশ্বে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়ে। এই ভয়ঙ্কর রোগটি বিশ্ব জুড়ে বহু মানুষের প্রাণ কেড়েছে।