১৭ মে কি শেষ হচ্ছে লকডাউন, তারপর কী ভাবনাচিন্তা সরকারের? প্রশ্ন সনিয়ার

Coronavirus Lockdown: ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কংগ্রেস শাসিত রাজ্যগুলোর মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে সনিয়া বলেন, "১৭ মে-এর পরে কী হবে? কীভাবে চলবে সব?"

১৭ মে কি শেষ হচ্ছে লকডাউন, তারপর কী ভাবনাচিন্তা সরকারের? প্রশ্ন সনিয়ার

Sonia Gandhi: ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কংগ্রেস শাসিত রাজ্যগুলির মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেন কংগ্রেস সভানেত্রী

হাইলাইটস

  • লকডাউন পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধি
  • কংগ্রেস শাসিত রাজ্যগুলোর মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি
  • লকডাউন নিয়ে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করুক কেন্দ্র, দাবি তুললেন সনিয়া
নয়া দিল্লি:

দেশ জুড়ে হওয়া লকডাউন (Coronavirus Lockdown) পরিস্থিতি ও তার পরবর্তী অবস্থা নিয়ে উদ্বিগ্ন সনিয়া গান্ধি। বুধবারই কংগ্রেস সভানেত্রী (Sonia Gandhi) ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কংগ্রেস (Congress) শাসিত রাজ্যগুলোর মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেন। সেখানেই তিনি সরকারের উদ্দেশে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন। সনিয়া গান্ধি প্রশ্ন করেন যে করোনা ভাইরাসকে রুখতে চলতি লকডাউন আর কতদিন বজায় থাকবে? কোন মানদণ্ডের উপর ভিত্তি করে লকডাউন আরও কিছুদিন জারি থাকবে নাকি তুলে দেওয়া হবে তা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে কেন্দ্র? আর যদি তা উঠেও যায় তবে লকডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি সামাল দিতে মোদি সরকার কী ভাবনাচিন্তা করছে সেবিষয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। কংগ্রেসের প্রধান মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা জানিয়েছেন, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কংগ্রেস শাসিত রাজ্যগুলির মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে সনিয়া বলেন, "১৭ মে-এর পরে কী হবে? কীভাবে চলবে সব?" ওই ভিডিও কনফারেন্সের বৈঠকে সনিয়ার বক্তব্যকে সমর্থন করে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংও বলেন, "সনিয়াজি যেকথা বলছেন তা একেবারেই ঠিক, আমাদেরও জানা দরকার লকডাউন -৩ এর পরে কী হবে?"

"আরোগ্য সেতু অ্যাপে তথ্য চুরি যায় না": হ্যাকারের সতর্কবার্তা উড়িয়ে দিয়ে জানাল কেন্দ্র

দেশের কৃষকদের বিষয়ে সনিয়া বলেন, "আমরা আমাদের দেশের কৃষকদের বিশেষত পঞ্জাব ও হরিয়ানার কৃষকদের ধন্যবাদ জানাই। কেননা তাঁরা সমস্ত অসুবিধা সত্ত্বেও দুর্দান্ত গমের ফলন দিয়েছেন এবং দেশের খাদ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করেছেন।" কংগ্রেস নেতা সুরজেওয়ালা জানান, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট ওই বৈঠকে যোগ দিয়ে সনিয়া গান্ধির বক্তব্যকে সমর্থন করে একই সুরে বলেন, "যদি সরকার বিরাট এক ত্রাণ প্যাকেজ ঘোষণা না করে, তবে এরপর রাজ্য তথা গোটা দেশ কীভাবে চলবে? এই পরিস্থিতিতে আমরা দশ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব হারিয়েছি। রাজ্যগুলি ত্রাণ প্যাকেজের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে লাগাতার অনুরোধ করে যাচ্ছে, কিন্তু আমরা এখনও পর্যন্ত ভারত সরকারের কাছ থেকে সেভাবে কিছু সাহায্য পাইনি"।

৫০ হাজারের কাছাকাছি মানুষ করোনা আক্রান্ত ভারতে! মৃতের সংখ্যা ১,৬৯৪

সনিয়া গান্ধির সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের সময়, পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং বলেন, "সরকার দিল্লিতে বসে থেকে কোনও বাস্তব পরিস্থিতি না জেনেই কোভিড -১৯ এর প্রকোপের এলাকাগুলোকে ভাগ করছে, যা উদ্বেগজনক।"

এদিকে দেশের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী তথা প্রবীণ কংগ্রেস নেতা পি চিদাম্বরম সনিয়া গান্ধির সঙ্গে কংগ্রেস শাসিত রাজ্যগুলোর মুখ্যমন্ত্রীদের বৈঠকে বলেন যে অর্থনৈতিক দিক থেকে রাজ্যগুলোর অবস্থা অত্যন্ত খারাপ, অথচ কেন্দ্র তাদের জন্য কোনও তহবিল বরাদ্দ করছে না।