খুলল ধর্মীয় স্থান,শপিং মলের দরজা, দেওয়া হল নয়া গাইডলাইন

৮ জুন থেকে কার্যকর এই নয়া গাইডলাইন

খুলল ধর্মীয় স্থান,শপিং মলের দরজা, দেওয়া হল নয়া গাইডলাইন

Coronavirus: ২৫মার্চ দেশজুড়ে লকডাউন জারি হয়

নয়াদিল্লি:

করোনা ভাইরাস লকডাউনের ফলে বন্ধ থাকা শপিং মল, রেস্তোঁরা, ধর্মীয়স্থানগুলি বৃহস্পতিবারই খোলার ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এবার সেইগুলির জন্য জারি করা হল নয়া গাইডলাইন, যা কার্যকর হবে ৮ জুন থেকে। তারমধ্যে রয়েছে ধর্মীয়স্থানে প্রতিমা না ছোঁয়ার মতো পদক্ষেপ।

সাধারণভাবে লাগু করা নিয়মগুলি রইল এখানে:

  1. যতটা সম্ভব ৬ ফুট দূরত্ব মেনে চলতে হবে
     
  2. মাস্ক বা মুখ ঢেকে রাখা বাধ্যতামূলক
     
  3. সাবান দিয়ে অন্তত ৪০ থেকে ৬০ সেকেন্ড বা অ্যালকোহল স্যানিটাইজার দিয়ে অন্তত ২০ সেকেন্ড হাত ধোওয়া আবশ্যিক
     
  4. মুখ ও নাক ঢেকে রাখা বাধ্যতামূলক কাশি, হাঁচি, রুমাল, টিস্যু পেপার বা হাত দিয়ে মুখ ঢাকা যেতে পারে
     
  5. নিজের স্বাস্থ্যের দিকে নজর রাখতে হবে এবং অসুস্থ হলে দ্রুত রাজ্য বা জেলা স্বাস্থ্য দফতরে জানাতে হবে
     
  6. কঠোরভাবে নিষিদ্ধ থুতু ফেলা

শপিং মলের জন্য নিয়মাবলী

  1. বাইরে থেকে আগতদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার ও থার্মাল স্ক্রিনিং বাধ্যতামূলক
     
  2. যাঁদের লক্ষণ নেই,শুধুমাত্র তাঁদেরই ঢুকতে দেওয়া হবে
     
  3. মাস্ক বা মুখ ঢেকে রাখলে তবেই কর্মী বা ক্রেতাদের ঢুকতে দেওয়া হবে
     
  4. শপিং মলের বিতর সবসময় মাস্ক পরে থাকতে হবে
     
  5. পোস্টার, কোনও স্ট্যান্ড বা করোনা নিয়ে বিজ্ঞাপন দিতে হবে যথাযথভাবে
     
  6. সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে চলতে প্রয়োজনীয় কর্মী মোতায়েন করতে হবে
     
  7. যে সমস্ত কর্মী ঝুঁকিপূর্ণ যেমন বয়স্ক কর্মী,অন্তঃসত্ত্বামহিলা., এবং শারিরীক অসুস্থ কর্মীদের জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে। জনগণের সঙ্গে সরাসরি যোগ হবে এমন কোনও কাজে তাঁদের নিয়োগ করা যাবে না।   
     
  8. যথাযথভাবে ভিড়় ম্যানেজমেন্ট করতে হবে বিশেষ করে পার্কিং এর জায়গাগুলিতে।
     
  9. পার্কিং-এর জায়গাগুলিতে কর্মীদের মাস্ক পড়তে হবে। স্টিয়ারিং, দরজার হ্যান্ডেল, চাবি গুলিকে যথাযথভাবে জীবানুমুক্ত করে ব্যবহার করতে হবে।
     
  10. কোনও দোকান, স্টল, ক্যাফেটেরিয়ার বাইরে ও ভিতরে সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে চলতে হবে।

রেস্তোঁরাগুলিতে যে সমস্ত নিয়মগুলি মেনে চলতে হবে:  

  1. রেস্তোঁরাগুলিতে খাবার বাইরে নিয়ে যাওয়ার জোর দিতে হবে। ক্রেতাদের বাড়ির দরজার সামনে খাবারের প্যাকেট রেখে আসবেন ডেলিভারি কর্মীরা। সরসারি ক্রেতার হাতে খাবারের প্যাকেট তুলে দেওয়া যাবে না।
     
  2. হোম ডেলিভারির কর্মীদের থার্মাল স্ক্রিনিং করিয়ে তবেই তাঁদের কাজে লাগাতে হবে
     
  3. বাইরে থেকে আসা ক্রেতাদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং থার্মাল স্ক্রিনিং করাতে হবে
     
  4. শুধুমাত্র উপসর্গহীন কর্মীরাই ভিতরে যেতে পারবেন
     

শুধুমাত্র মাস্ক পরা থাকলে তবেই ভিতরে যেতে পারবেন কর্মীরা। রেস্তোঁরার ভিতরে সব সময়ে মাস্ক পরে থাকা বাধ্যতামূলক

মন্দিরের জন্য নিয়মাবলী
 

  1. বাইরে থেকে আগতদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং থার্মাল স্ক্রিনিং করা হবে
     
  2. শুধুমাত্র উপসর্গহীনরাই ঢুকতে পারবেন
     
  3. মাস্ক পরা থাকলে তবেই ভিতরে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হবে
     
  4. করোনা সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন, পোস্টার যথাযথভাবে দিতে হবে
     
  5. প্রতিদিন নিয়মমাফিক চালাতে হবে করোনার সচেতনার অডিও, ভিডিও ক্লিপ
     
  6. নিজের গাড়িতে জুতো রেখে মন্দিরে যেতে হবে। প্রতিদিন পরিবারের প্রতিটি সদস্যদের আলাদা জায়গায় রাখতে হবে
     
  7. মন্দিরের বাইরের দোকান, ক্যাফেটেরিয়ায় সামাজিক দূরত্ববিধি মনে চলতে হবে
     
  8. প্রবেশ ও প্রস্থানের আলাদা জায়গা দরজা রাখা হবে।
     
  9. প্রবেশ পথে ৬ ফুট দূরত্ববিধি মেনে চলতে হবে
     
  10. প্রবেশের আগে হাত, পা পরিষ্কার করে ধুতে হবে
     
  11. সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে বসার জায়গা করতে হবে
     
  12. মন্দিরের প্রতিমা, পবিত্র গ্রন্থ স্পর্শ করা যাবে না
     
  13. বড় জমায়েত বন্ধই থাকবে
     
  14. একে অপরকে সম্মান জানানোর সময়েও শারিরীক সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে হবে
     
  15. এক আসনে সবাইকে বসানো যাবে না. নিজের বাড়ি থেকে ভক্তদের আলাদা বসার জায়গা আনতে হবে। পরে তা ফিরিয়ে নিয়ে যেতে হবে
     
  16. ​ধর্মীয় স্থানের ভিতরে প্রসাদ বিলি, পবিত্র জল ছেটানো চলবে না