This Article is From May 04, 2020

পরিযায়ী শ্রমিকদের থেকে ট্রেন ভাড়া নেওয়ার কথাই হয়নি: কেন্দ্র

পরিযায়ী শ্রমিকদের রাজ্যে ফিরিয়ে দিতে যে বিশেষ ট্রেন চালানো হচ্ছে সেখানে যাত্রীদের থেকে কোনও ভাড়া নেওয়ার কথা হয়নি বলে সোমবার জানাল কেন্দ্রীয় সরকার।

পরিযায়ী শ্রমিকদের থেকে ট্রেন ভাড়া নেওয়ার কথাই হয়নি: কেন্দ্র

বিশেষ ট্রেনে পরিযায়ীদের তাঁদের রাজ্যে ফেরানো হচ্ছে।

নয়াদিল্লি:

পরিযায়ী শ্রমিকদের ( Migrant Workers) তাঁদের রাজ্যে ফিরিয়ে দিতে যে বিশেষ ট্রেন চালানো হচ্ছে সেখানে যাত্রীদের থেকে কোনও ভাড়া (Train Fare) নেওয়ার কথা হয়নি বলে সোমবার জানাল কেন্দ্রীয় সরকার। স্বাকেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের যুগ্ম সচিব লব আগরওয়া‌ল জানাচ্ছেন, ওই যাত্রীদের ভাড়ার ৮৫ শতাংশ খরচ বহন করার রেল কর্তৃপক্ষের। বাকি অংশ দেওয়ার কথা সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারের। লব আগরওয়া‌ল সাংবাদিকদের জানাচ্ছেন, ‘‘রাজ্যগুলির অনুরোধে আমরা বিশেষ ট্রেন চালানোর অনুমতি দিয়েছিল‌াম। আমরা খরচটা ৮৫-১৫ শতাংশে (রেল: রাজ্য) ভাগ করে দিয়েছিলাম নিয়ম মেনে। আমরা কখনওই রাজ্যকে পরিযায়ী শ্রমিকদের থেকে টাকা নিতে বলিনি।'' কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গান্ধি ঘোষণা করেছেন, কংগ্রেসের তরফে পরিযায়ী শ্রমিকদের ভাড়া বাবদ খরচ বহন করা হবে। সেপ্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে লব আগরওয়াল এমনই উত্তর দিয়েছেন।

মদের দোকানে দীর্ঘ লাইন, সামাজিক দূরত্বের নিয়মকে কলা দেখিয়ে চলল ঠেলাঠেলিও

কেন্দ্র যেভাবে এই সঙ্কটের সময় খাদ্য, চাকরি, বাসস্থান হারানো পরিযায়ী শ্রমিকদের থেকে নিজের রাজ্যে ফেরার জন্য ট্রেনের ভাড়া নিচ্ছে তার সমালোচনা করেছিলেন সনিয়া গান্ধি।

তিনি বলেন, “যখন আমাদের সরকার বিদেশে আটকা পড়া নাগরিকদের জন্য বিনামূল্যে বিমান ভ্রমণ ব্যবস্থা করতে পারে, যখন সরকার গুজরাটে কেবল একটি প্রকাশ্য কর্মসূচির জন্য পরিবহন ও খাবার বাবদ প্রায় ১০০ কোটি টাকা খরচ করতে পারে, যখন রেল মন্ত্রক প্রধানমন্ত্রীর করোনা তহবিলের জন্য ১৫১ কোটি টাকা অনুদান দিতে পারে তাহলে কেন আমাদের দেশের এই প্রয়োজনীয় সদস্যদের সঙ্গেও একই সৌজন্য বোধ দেখানো হবে না, বিশেষত অন্তত বিনামূল্যে রেল ভ্রমণ, তীব্র সঙ্কটের এই সময়ে?”

দেশে COVID-19 আক্রান্ত হয়ে মৃত ১,৩৭৩ জন! আক্রান্ত ৪২,৫৩৩! এক ঝলকে, কোন রাজ্যে কত মৃত্যু

ওই মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় সরকার জানিয়ে দিয়েছে, রেল ৮৫ শতাংশ ভাড়া দেবে। বাকিটা দেওয়া রাজ্যের কর্তব্য। যদিও শুক্রবার ওই বিশেষ ট্রেন পরিষেবা শুরু হওয়ার সময় যে সরকারি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয় তার বক্তব্য কিন্তু ভিন্ন ছিল।

তাতে বলা হয়েছিল, স্থানীয় প্রশাসন যাত্রীদের টিকিট দেওয়ার পরিবর্তে ভাড়ার টাকা নিয়ে সম্পূর্ণ অর্থ রেলকে দেবে।

কয়েক সপ্তাহের প্রবল বিতর্ক চলার পর গত সপ্তাহেই কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে পরিযায়ীদের জন্য বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করার কথা জানানো হয়।

গত ২৫ মার্চ দেশব্যাপী লকডাউন শুরু হওয়ার ফলে সারা দেশে পরিযায়ী শ্রমিকরা আটকে পড়েন নিজেদের রাজ্যে।