মহারাষ্ট্র থেকে ফিরে আসা উত্তরপ্রদেশের ৭ পরিযায়ী শ্রমিক করোনা পজিটিভ

Coronavirus cases, UP: আপাতত লখনউ থেকে প্রায় ২৬০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত বাস্তির একটি স্থানীয় হাসপাতালে ওই শ্রমিকদের কোয়ারান্টাইন করা হয়েছে

Migrant Crisis: চলতি সপ্তাহের শুরুতেই উত্তরপ্রদেশে নিজেদের বাড়িতে ফিরে আসেন ওই শ্রমিকরা

হাইলাইটস

  • দেশ জুড়ে লকডাউনের কারণে ভিনরাজ্যে আটকে পড়েছেন বহু শ্রমিক
  • তাঁদের নিজেদের রাজ্যে ফেরানোর লক্ষ্যে শুক্রবার থেকে বিশেষ ট্রেন চালানো হয়
  • সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশে ফিরে আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের মধ্যে ৭ জন করোনা পজিটিভ
লখনউ:

করোনা ভাইরাসকে (Coronavirus) রুখতে দেশে লকডাউন জারি হওয়ার ফলে বহু রাজ্যেই আটকে পড়েন অসংখ্য পরিযায়ী শ্রমিক (Migrant Crisis), ভিনরাজ্যের পড়ুয়া এবং পর্যটকরা। তাঁদের ঘরে ফেরানোর জন্যে বিশেষ ট্রেন চালাতে শুরু করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এছাড়া বিভিন্ন রাজ্যের সরকারকে কেন্দ্রের তরফ থেকে এই অনুমতিও দেওয়া হয় যে, প্রয়োজনে বাসের ব্যবস্থা করে ওই আটকে পড়া মানুষজনকে নিজেদের রাজ্যে ফেরানোর ব্যবস্থা করা হোক। তবে কেন্দ্রের তরফ থেকে একথাও বলা হয় যে, লকডাউনে এতদিন যাঁরা ভিনরাজ্যে আটকে ছিলেন তাঁদের নিজেদের রাজ্যে ফেরানোর আগে শরীরের নমুনা পরীক্ষা করে দেখা হোক যে তাঁরা করোনা পজিটিভ নাকি নেগেটিভ। যাঁরা করোনা নেগেটিভ তাঁরাই ফিরতে পারবেন বাড়িতে একথাও স্পষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু তারমধ্যেই "বজ্র আঁটুনি ফস্কা গেরো"। দেখা গেল উত্তরপ্রদেশের (Coronavirus cases UP) যে পরিযায়ী শ্রমিকদের সম্প্রতি মহারাষ্ট্র থেকে ফেরানো হয়েছে তাঁদের মধ্যে ৭ জন করোনা পজিটিভ। ফলে নতুন করে আতঙ্ক ছড়িয়েছে সেরাজ্যে।

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁঁছলো ৩৭,৩৩৬ জনে, ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২,২৯৩ জন

জানা গেছে, আপাতত লখনউ থেকে প্রায় ২৬০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত বাস্তির একটি স্থানীয় হাসপাতালে ওই শ্রমিকদের কোয়ারান্টাইন করা হয়েছে। তবে যাঁরা ইতিমধ্যেই ওই করোনা রোগীদের সংস্পর্শে এসেছিলেন তাঁদের সবাইকে খুঁজে বের করে কোয়ারান্টাইন করার চেষ্টা করা হচ্ছে। 

COVID-19 এর বিস্তার রোধে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২৫ মার্চ থেকে দেশব্যাপী লকডাউনের ঘোষণা করার পরেই নিজের বাড়ি ছেড়ে অন্য জায়গায় যাওয়া প্রচুর মানুষ সেখানেই আটকা পড়ে যান। এদিকে দেশে হু-হু করে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক শনিবার সকালে জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ওই মারণ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ২,২৯৩ জন। এর ফলে ভারতে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এখন ৩৭,৩৩৬ জন। অত্যন্ত সংক্রামক কোভিড-১৯ এর কবলে পড়ে মারা গেছেন মোট ১,২১৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৭১ জন। 

করোনার শিকার সিআরপিএফের জওয়ানরাও! আক্রান্ত ১২২ জন, আরও সংক্রমণের আশঙ্কা

এদিকে উত্তরপ্রদেশে প্রায় ২,৩০০ জন এখনও পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। কমপক্ষে ৪২ জন মারা গেছেন ওই রোগের প্রকোপে।

লকডাউন শুরু হওয়ার পাঁচ সপ্তাহ পরে, বুধবার কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়, যে শ্রমিকরা ভিনরাজ্যে আটকে পড়ে আছেন তাঁরা যদি করোনা নেগেটিভ হন তবে তাঁদের নিজেদের রাজ্যে ফিরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া যেতে পারে। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পরপরই শ্রমিকদের ফেরাতে শুক্রবারই প্রথম একটি বিশেষ ট্রেন চালানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়। এই উদ্যোগের কথা জানতে পেরে হাসি ফোটে নিজের রাজ্য ছেড়ে অন্য রাজ্যে গিয়ে আটকে পড়া অসংখ্য শ্রমিক, পড়ুয়া ও অন্যান্য ব্যক্তিদের মুখে।