২২টি জেলায় একটি করে করোনা হাসপাতাল খুলতে উদ্যোগ: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

রাজ্যের ২২টি জেলায় অন্তত একটা করে আইসোলেশন কেন্দ্র খোলা হচ্ছে। সোমবার ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।

২২টি জেলায় একটি করে করোনা হাসপাতাল খুলতে উদ্যোগ: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

রাজ্যের (West Bengal) ২২টি জেলায় অন্তত একটা করে আইসোলেশন কেন্দ্র খোলা হচ্ছে । সোমবার ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল)

কলকাতা:

রাজ্যের (West Bengal) ২২টি জেলায় অন্তত একটা করে আইসোলেশন কেন্দ্র খোলা হচ্ছে  (District-wise Isolation Centre)। সোমবার ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। জানা গিয়েছে, প্রতি জেলার কোনও একটা হাসপাতালকে চিহ্নিত করে সেটাকে আইসোলেশন কেন্দ্রে রুপান্তরিত করতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এই মর্মে নির্দেশ গিয়েছে জেলা শাসক ও জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের কাছে। কোনটা হাসপাতালকে রূপান্তরিত  করা সম্ভব, তা অবিলম্বে জানাতে বলা হয়েছে। স্বাস্থ্য ভবন সূত্রে খবর, শয্যাসংখ্যা, চিকিৎসার যন্ত্রপাতি এবং কতজন চিকিৎসক-নার্স কর্মী দরকার,? এ সব উল্লেখ করে রিপোর্ট পাঠাতে হবে স্বাস্থ্য ভবনকে। স্বাস্থ্যকর্তাদের দাবি, "সরকার আগাম সর্তকতা হিসেবে এমন সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।" এদিকে রাজ্যে সংক্রমণের সংখ্যা ২০ ছাড়িয়েছে। মৃত ২। সোমবার ভোরে উত্তরবঙ্গে এক করোনা আক্রান্ত মহিলার মৃত্যুর খবর মিলেছে। তবে আশার খবর, মোট ৩ জন সংক্রমিত দ্রুত সেরে উঠছেন।   

রক্ষাকবচ পরে পথে মন্ত্রী! লকডাউনে ঘর থেকে না বেরোনোর অনুরোধ মাইক্রোফোনে

এদিকে, মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ১০ লক্ষ টাকা বিমার আওতায় আনা হবে চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী ও পুলিশকর্মীদের। এর আগে ৫ লক্ষ টাকা করে বিমার আওতায় আনা হয়েছিল। নবান্নে জানিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি এদিন নবান্ন থেকে ভিডিও কনফারেন্স করে জেলার কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। করোনা পরস্থিতি খতিয়ে দেখতে এই বৈঠক বলে খবর।   

ভারত এখনও স্থানীয় সংক্রমণের স্তরেই রয়েছে, করোনা সংক্রমণ নিয়ে জানাল সরকার

এদিকে, রাজ্যের একধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান করোনা ভাইরাস মহামারী মোকাবিলায় রাজ্য সরকারের পাশে দাঁড়াতে চাইছে। আপৎকালীন ত্রাণ তহবিলে অনুদান দিতে ইচ্ছাপ্রকাশ করেছে তারা। ২৭ মার্চ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সকলের কাছে তহবিলে অনুদান দেওয়ার জন্য আর্জি জানান। তিনি সমস্ত প্রতিষ্ঠান তো বটেই, ব্যক্তিগত ভাবেও অনুদানের অনুরোধ করেন। এরপরই কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ও সেন্ট জেভিয়ার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে রাজ্য সরকারের তহবিলে অনুদান দেওয়ার কথা জানানো হয়। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সোনালি চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য ও রেজিস্ট্রারের সঙ্গে আলোচনা চাল‌াচ্ছেন যথেষ্ট পরিমাণে অনুদান দেওয়ার ব্যাপারে। তবে কত টাকা তাঁরা দিচ্ছেন সে ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু জানাননি উপাচার্য। 



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)