‘‘নিজের ভূমিকা নিয়ে ভাবো’’: আপের প্রশংসা করার পর কংগ্রেস নেতা মিলিন্দ দেওরাকে কংগ্রেস

নাম না করে তাঁর সমালোচনা করে কংগ্রেসের মুখপাত্র বলেন, ‘‘রাজ্যের বাইরে নিজেদের ভূমিকা এবং নিজেদের কার্যকলাপ খতিয়ে দেখা উচিত কংগ্রেস নেতাদের।

‘‘নিজের ভূমিকা নিয়ে ভাবো’’: আপের প্রশংসা করার পর কংগ্রেস নেতা মিলিন্দ দেওরাকে কংগ্রেস

নাম না করেই তাঁকে দলের তরফে সতর্ক করে দেওয়া হল মিলিন্দকে।

হাইলাইটস

  • কংগ্রেস নেতা মিলিন্দ দেওরাকে সতর্ক করে দিল কংগ্রেস
  • তিনি আপের প্রশংসা করা নিয়েই বিতর্ক
  • রবিবার অরবিন্দ কেজরিওয়ালের শপথগ্রহণের পর ওই টুইট করেন মিলিন্দ
নয়াদিল্লি:

আম আদমি পার্টির (AAP) প্রশংসা করে বিতর্কে জড়িয়েছেন কংগ্রেস নেতা মিলিন্দ দেওরা (Milind Deora)। এবার নাম না করেই তাঁকে দলের তরফে সতর্ক করে দেওয়া হল। পাশাপাশি দলে তাঁর ভূমিকার বিষয়টিও তাঁকেই খতিয়ে দেখার কথা জানানো হল দলীয় নেতৃত্বের তরফে। এর আগে এই বিষয়েই দলীয় সতীর্থ অজয় মাকেনের সঙ্গে রাজনৈতিক তর্ক বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন মিলিন্দ। এবার নাম না করে তাঁর সমালোচনা করে কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সুরযেওয়ালা বলেন, ‘‘রাজ্যের বাইরে নিজেদের ভূমিকা এবং নিজেদের কার্যকলাপ খতিয়ে দেখা উচিত কংগ্রেস নেতাদের। দেখা উচিত নিজেদের কেন্দ্র ও এবং নিজেদের রাজ্যে তাঁদের পারফরম্যান্স ও দায়িত্বকে।''

‘‘ভাই, প্লিজ ছেড়ে দাও'': আপের প্রশস্তি করায় কটাক্ষ কংগ্রেস নেতা মিলিন্দ দেওরাকে

মিলিন্দ দেওরার ঘনিষ্ঠ সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে, এই মুহূর্তে দল ছাড়ার কোনও পরিকল্পনা ন‌েই মিলিন্দের।

রবিবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের শপথগ্রহণের পর মিলিন্দ তাঁর টুইটে জানান, গত পাঁচ বছরে আপের শাসনাধীন দিল্লি সরকারের আয় দ্বিগুণ হয়ে ৬০,০০০ কোটি টাকা হয়ে গিয়েছে। শেষে তিনি লেখেন, ‘‘দিল্লি এখন অর্থন‌ৈতিক ভাবে দেশের সবচেয়ে অগ্রণী রাজ্য সরকার।''

তাঁর টুইটের পরেই দ্রুত ও মোক্ষম জবাব দেন দিল্লির কংগ্রেস নেতা তথা দিল্লির প্রাক্তন স্পিকার ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অজয়। তিনি লেখেন, ‘‘ভাই, তুমি কংগ্রেস ছাড়তে চাইছ, দয়া করে ছেড়ে দাও। আর তারপর এই সব অর্ধসত্য তথ্যের প্রোপাগান্ডা করো।''

Newsbeep

পাল্টা টুইট করেন মিলিন্দও। তিনি লেখেন, ‘‘ভাই, আমি কখনও দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শীলা দীক্ষিতের দুরন্ত পারফরম্যান্সকে অস্বীকার করিনি। সেটা তোমার বিশেষত্ব। কিন্তু বদলাতে সময় লাগে না! আপে যোগ দেওয়ার জন্য ওকালতি না করে তুমি যদি শীলাজির প্রাপ্তিগুলি তুলে ধরতে, আজও কংগ্রেস ক্ষমতায় থাকত।''

আপ ক্ষমতায় প্রত্যাগমনের পর মিলিন্দ দেওরা বা পি চিদাম্বরমের মতো কংগ্রেস নেতারা আপের প্রশংসা করেছেন। অন্যদিকে কংগ্রেস নেতারা তাঁদের খোলাখুলি সমালোচনা করেছেন।

মিলিন্দ দেওরা গত মঙ্গলবার ফলপ্রকাশের পর একটি টুইটে কংগ্রেস নেতা পি চাকোর শীলা দীক্ষিতের সমালোচনা করার বিষয়টি নিয়ে আক্রমণ করেন। তিনি লেখেন, ‘‘শীলা দীক্ষিতজি একজন অনন্য রাজনীতিবিদ ও প্রশাসক ছিলেন। তাঁর মুখ্যমন্ত্রিত্বের সময় দিল্লি বদলায় এবং কংগ্রেস সবচেয়ে শক্তিশালী হয়ে ওঠে। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে দেখতে পাচ্ছি তাঁকে অভিযুক্ত করা হচ্ছে তাঁৱ মৃত্যুর পরে। তিনি তাঁর সারা জীবন উৎসর্গ করেছেন দিল্লির মানুষ ও জাতীয় কংগ্রেসের জন্য।''