প্রধানমন্ত্রীকে যে কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে পড়ুয়াদের সঙ্গে সাক্ষাতের চ্যালেঞ্জ রাহুল গান্ধির

কংগ্রেসনেতা রাহুল গান্ধি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চ্যালেঞ্জ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী যেন যে কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে পড়ুয়াদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

দেশের অর্থনীতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে বিঁধলেন রাহুল গান্ধি।

নয়াদিল্লি:

কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি (Rahul Gandhi) চ্যালেঞ্জ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে (PM Modi)। তিনি তাঁকে চ্যালেঞ্জ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী যেন যে কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে পড়ুয়াদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা দেশের অর্থনীতির বিপর্যয় ও তার ফলস্বরূপ সৃষ্টি হওয়া বেকারত্বের কারণে ক্ষুব্ধ। তিনি বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী মোদির উচিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলির তরুণদের সঙ্গে কথা বলার সাহস দেখানো এবং তাদের গিয়ে বুঝিয়ে বলা কেন দেশের অর্থনীতির এই অবস্থা। তাঁর এমন করার সাহস নেই। আমি তাঁকে চ্যালেঞ্জ করছি, তিনি দেশকে নিয়ে কী করতে চান তা দেশের মানুষদের বলতে।'' রাহুল গান্ধি আরও বলেন, ‘‘দেশের তরুণদের কণ্ঠস্বর শোনা দরকার।'' তরুণদের সমস্যা নিয়ে বলতে গিয়ে তিনি অভিযোগ জানান, তাদের সমস্যা নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে প্রধানমন্ত্রী ব্যস্ত রয়েছেন বিভ্রান্তি ও বিভাজন‌ের নীতি প্রয়োগে।

কংগ্রেসের ডাকা বিরোধী বৈঠকে গড়হাজির অনেকেই

কেবল রাহুল গান্ধি নন, কংগ্রেসের অন্তর্বর্তী সভাপতি সনিয়া গান্ধিও কথা বলেন তরুণদের গড়া তোলা আন্দোলন নিয়ে। তিনি জানান, ‘‘দেশব্যাপী তরুণরা যে আন্দোলন গড়ে তুলেছে তাকে সমর্থন করছে দেশের সব নাগরিক। প্রাথমিক ভাবে সিএএ ও এনআরসি হল কারণ। কিন্তু এটা ব্যাপক রাগ ও হতাশার প্রতিফলন।'' সনিয়া আরও বলেন, সরকার সমস্যা নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে প্রতিবাদীদের দমিয়ে রাখতেই ব্যস্ত।

দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে হওয়া ছাত্র আন্দোলনের প্রসঙ্গে সনিয়া গান্ধি বলেন, গোটা দেশ আতঙ্কের সঙ্গে দেখেছে জেএনইউয়ে কীভাবে নিগ্রহ চালিয়েছে বিজেপি।

নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি নিয়ে আজ বিরোধীদের বৈঠক, থাকছেন না মমতা

প্রসঙ্গত, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও প্রস্তাবিত এনআরসির বিরুদ্ধে দেশজুড়ে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হয়েছে আন্দোলন। গত মাসে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ায় ছাত্র আন্দোলন রুখতে পুলিশের বলপ্রয়োগের অভিযোগ উঠেছিল। এরপর গত সপ্তাহে জেএনইউয়ে মুখোশধারী দুষ্কৃতীরা চড়াও হয় প্রতিবাদীদের উপরে। পড়ুয়াও অধ্যাপক মিলিয়ে ৩৪ জন আহত হন।

সোমবার ছিল এই ইস্যুতে বিরোধী দলগুলির বৈঠক। কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেস সহ প্রধান ছ'টি বিরোধী দল সেই বৈঠকে অনুপস্থিত ছিল। এদিকে আম আদমি পার্টি জানিয়েছে, তাদের এই বৈঠকে আমন্ত্রণই জানানো হয়নি। 
 

More News