“২০১৯ এর রায় খুব ভয়ঙ্করভাবে অপমান করা হচ্ছে”, বললেন সনিয়া গান্ধি

সনিয়া গান্ধি বলেন, কংগ্রেস “নির্ভয়ে উঠে দাঁড়াবে, রাস্তায় নেমে লড়াইয়ের জন্য, গ্রামে লড়াইয়ের জন্য, শহরে এবং গ্রামে লড়াইয়ের জন্য”

 Share
EMAIL
PRINT
COMMENTS

গতমাসেই কংগ্রেসের অন্তবর্তীকালীন সভানেত্রী হন সনিয়া গান্ধি


নয়াদিল্লি: 

প্রায় একমাস আগে কংগ্রেসের অন্তবর্তীকালীন সভানেত্রী পদের দায়িত্ব নিয়েছেন সনিয়া গান্ধি (Sonia Gandhi), বৃহস্পতিবার, বিজেপিকে গণতন্ত্রের পক্ষে “সমূহ বিপদ” বলে মন্তব্য করে, গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে লড়াইয়ের একটি রণকৌশল তৈরি করলেন তিনি। যে রায় তারা পেয়েছে, তার অপব্যবহারের অভিযোগ তুলে, সনিয়া গান্ধি বলেন, “শুধুমাত্র সোশ্যাল মিডিয়াতেই আক্রমণাত্মক এবং সক্রিয় হলেই চলবে না...মানুষের কাছে প্রত্যক্ষভাবে যেতে হবে”। তিনি বলেন, “গণতন্ত্রে এতবড় সমূহ বিপদ আগে কখনও আসেনি...কয়েক সপ্তাহ আগে আমি বলেছি, ২০১৯ এর রায় এখন অপব্যবহার করা হচ্ছে, এবং তার খুব ভয়ঙ্করভাবে তার অপমান করা হচ্ছে”।

মধ্যপ্রদেশে দলের অন্তর্দ্বন্দ্ব নিয়ে সনিয়া-কমলনাথ বৈঠক

সামনেই কয়েকটি রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন। সেখানে দলের ঘুরে দাঁড়ানোর কৌশল নিয়ে আলোচনা করতে অভ্যন্তরীণ বৈঠক হয় কংগ্রেসের, সেখানেই এই মন্তব্য করেন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধি। তিনি বলেন, কংগ্রেস অবশ্যই, “নির্ভয়ে উঠে দাঁড়াবে, রাস্তায় নেমে লড়াইয়ের জন্য, গ্রামে লড়াইয়ের জন্য, শহরে এবং গ্রামে লড়াইয়ের জন্য”। সনিয়া গান্ধি বলেন, কংগ্রসের অবশ্যই একটি ইস্যু থাকবে, তা সামাজিক হোক বা অর্থনৈতিক, তা নিয়ে মানুষের ওপর চিন্তাভাবনা বাড়াতে হবে।

তিনি যা বলেছেন, তা হল, দেশের সমস্যাগুলির মধ্যে রয়েছে, অর্থনৈতিক মন্দা, চাকরি হারানো, দিনে দিনে এগুলো বাড়ছে, বিনিয়োগকারীদের আত্মবিশ্বাস কমছে এবং দিনের পর দিন সরকার আরও বেশী বেশী করে “দিশাহীন এবং স্পর্শকাতরহীন” হয়ে উঠছে।

কংগ্রেসের পদ নিয়ে দ্বন্দ্ব, সনিয়া গান্ধির নাম নিলেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া

কংগ্রেস নেতৃত্বের তরফে বলা হয়েছে, তাদের একটি সদস্যপদ গ্রহণ অভিযান চলবে এবং বাড়ি বাড়ি প্রচার চলবে। সনিয়া গান্ধি জানান, মুখ্যমন্ত্রীরাসহ, সমস্ত বর্ষীয়ান নেতারা বুথস্তরের কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন এবং তাঁদের প্রশিক্ষণ দেবেন। তাঁরাই দলের জোরালো শক্তি হয়ে উঠবেন বলে জানান কংগ্রেস সভানেত্রী, পাশাপাশি ২ অক্টোবর বিশাল পদযাত্রা করা হবে বলেও সনিয়া গান্ধি।

লোকসভা নির্বাচনে দলের খারাপ ফলের দায় নিয়ে পদত্যাগ করেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধি। তার দুমাস পরে দলের হাল ধরেন সনিয়া গান্ধি। দ্বিমুখী এই চাপে অনেক নেতাই বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেন। কংগ্রেস সভানেত্রী বলেন, “আমি যা বলতে পারি, তা হল, তাঁরা তাঁদের সুযোগসন্ধানী মনোভাব প্রকাশ করেছেন”।



পশ্চিমবঙ্গের খবর, কলকাতার খবর , আর রাজনীতি, ব্যবসা, প্রযুক্তি, বলিউড আর ক্রিকেটের সকল বাংলা শিরোনাম পড়তে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

NDTV Beeps - your daily newsletter

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................