This Article is From Dec 20, 2019

"দেশ ও জনগণের প্রতি সম্পূর্ণ বিশ্বাস আছে, নাগরিকত্ব আইন নিয়ে জনমত সমীক্ষা হোক": প্রস্তাব মুখ্যমন্ত্রীর

Citizenship Amendment Act: বৃহস্পতিবার মমতা বলেন, “যদি বিজেপির সাহস থাকে, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এবং এনআরসি নিয়ে রাষ্ট্রসংঘের নজরদারিতে গণভোট করুক”

West Bengal: বাংলায় নাগরিকত্ব আইন এবং এনআরসি কোনওটাই চালু হবে না, বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

হাইলাইটস

  • মানুষের মতামত নেওয়া হোক, নাগরিকত্ব আইন বিষয়ে প্রস্তাব মুখ্যমন্ত্রীর
  • কেন্দ্রীয় সরকারকে জনমত সমীক্ষার চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন তিনি
  • নাগরিকত্ব আইন নিয়ে উত্তাল পশ্চিমবঙ্গও
কলকাতা:

নাগরিকত্ব আইনের (Citizenship Amendment Act) প্রতিবাদে যখন তোলপাড় বাংলা সহ গোটা দেশ, তখনই এক নতুন চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই বিতর্কিত আইন নিয়ে "মানুষের মতামত নেওয়া হোক", কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি নয়া চ্যালেঞ্জ দিলেন তিনি (Mamata Banerjee)। এর আগে বৃহস্পতিবারই নয়া নাগরিকত্ব আইন নিয়ে রাষ্ট্রসংঘের নজরদারিতে গণভোটের প্রস্তাব দেন তিনি। শহরে বিশাল জনসভায় তিনি বলেন, “যদি বিজেপির সাহস থাকে, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এবং এনআরসি (NRC) নিয়ে রাষ্ট্রসংঘের নজরদারিতে গণভোট করুক”। কিন্তু তারপরেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে বিজেপি। কীভাবে এমন একটি প্রস্তাব দেন তিনি, সেই প্রশ্ন তুলে গেরুয়া দল বলে এই মন্তব্যের জন্যে ক্ষমা চাইতে হবে তৃণমূল নেত্রীকে। আর তারপরেই রাষ্ট্রসংঘের নজরদারিতে গণভোট করানোর প্রস্তাব থেকে ইউ-টার্ন করে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, তিনি শুধুমাত্রই "মতামত ভিত্তিক ভোট"-এর কথা বলেছিলেন।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, "আমি গণভোট বলিনি। আমি গণনা ভোটের কথা বলেছি। আমি বলতে চেয়েছি যে মানবাধিকার কমিশনের মতো বিশেষজ্ঞদের পরিচালনায় একটি মতামত সমীক্ষা চালানো হোক। এই দেশ ও জনগণের প্রতি আমার সম্পূর্ণ বিশ্বাস আছে। আমি সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এবং এনআরসি-নিয়ে একটি মতামত সমীক্ষা চাই।"'

প্রতিবাদ থামান, শীর্ষ আদালতের কথা শুনুন': নাগরিকত্ব আইন প্রসঙ্গে বললেন রাজ্যপাল

বৃহস্পতিবার তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে লক্ষ্য করে বলেন, "আসুন আমরা একটি ভোট নিই। আপনারা সংখ্যাগরিষ্ঠ হওয়ায় আপনারা যা ইচ্ছে তাই করতে পারেন না। আপনারা সমাজের সমস্ত স্তরকে সন্ত্রস্ত করে রেখেছেন, সব জায়গায় ভয় ছড়িয়েছেন।"

সংসদে পাস হওয়ার পর রাষ্ট্রপতির অনুমোদন প্রাপ্ত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে বলা হয়েছে, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে যে সব অমুসলিম মানুষরা ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হয়ে ভারতে আশ্রয় নিয়েছেন তাঁরা এবার ভারতীয় নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে পারবেন। 

শান্তি ফিরছে বাংলায়, নাগরিকত্ব আইন নিয়ে কোনও নতুন বিক্ষোভের খবর নেই

গত বুধবার রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এই আইনে স্বাক্ষর করার পরেই দেশ জুড়ে বিক্ষোভ আন্দোলন শুরু হয়। বিশেষত  দেশের উত্তর-পূর্ব অঞ্চল এবং বাংলাতেও এই আইনের বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রতিবাদ শুরু হয়েছে। 

বিরোধীদের বিরুদ্ধে হিংসায় মদত দেওয়ার অভিযোগ তুলেছে বিজেপি। তবে এবার নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিকল্প পথের সন্ধান দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মানুষের মত নিয়েই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হোক, বলেন তিনি। 

জেনে নিন কী বলছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: