Chandrayaan 2 অবতরণের সাক্ষী হতে ইসরোয় প্রধানমন্ত্রী মোদি

Chandrayaan 2: চাঁদের পৃষ্ঠে অবতরণ সম্পূর্ণ করবে চন্দ্রযান-২, প্রথমবারেই চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে পৌঁছানো দেশ হিসেবে প্রথম স্থানে পৌঁছে যাবে ভারত

সারা দেশের ৭০টি স্কুলের পড়ুয়ারা থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে

হাইলাইটস

  • সারা দেশের ৭০টি স্কুলের পড়ুয়ারা থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে
  • ইসরোর আয়োজন করা ক্যুইজ প্রতিযোগিতায় জয়ী এই পডুয়ারা
  • ১.৫৫ নাগাদ অবতরণের কথা চন্দ্রযান-২-এর
নয়াদিল্লি:

ইসরোর কন্ট্রোলরুম থেকে চন্দ্রযান-২ এর অবতরণের লাইভ দেখতে বেঙ্গালুরু পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সারা দেশের ৭০টি স্কুলের পড়ুয়ারা থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে। অগস্টে ইসরোর আয়োজন করা ক্যুইজ প্রতিযোগিতায় জয়ী এই পডুয়ারা। প্রতিটি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের প্রথম দুই স্থানে থাকা চাঁদের পা দেওয়া দেশের সফলতার সাক্ষী  হতে চলেছেন তাঁরা। ১০  এবং ২৫ অগস্ট MyGov. এর সঙ্গে সমবন্বয়ে এই ক্যুইজ প্রতিযোগিতা হয়। দেশের মহাকাশ গবেষণা এবং কার্যকলাপ সম্পর্কে উৎসাহ দিতে এই পদক্ষেপ করা হয়। ১০ মিনিটে ২০টি প্রশ্নের উত্তর করতে হয় এই ক্যুইজ প্রতিযোগিতায়। “সবচেয়ে কম সময়ে সবচেয়ে বেশী সঠিক উত্তর” দেওয়ার প্রেক্ষিতে সফলতা বিচার করা হয়।

প্রতিযোগিতার শর্তাবলীতে উল্লেখ করা হয়, “অষ্টম থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত পড়য়াদের মধ্যে, প্রতিটি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের প্রথম শীর্ষে থাকা দুই পড়ুয়া বেঙ্গালুরুর ইসরো থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে চন্দ্রযান-২ এর অবতরণের লাইভ দেখার আমন্ত্রণ পাবে”।

চাঁদের পৃষ্ঠে ধীরে ধীরে অবতরণ করবে চন্দ্রযান-২, চাঁদে পা রাখা দেশ হিসেবে চতুর্থ এবং দক্ষিণ মেরুতে পৌঁছানো দেশ হিসেবে প্রথম স্থানে পৌঁছে যাবে ভারত।১,০০০ কোটি টাকার চন্দ্রযান-২ মিশনে তিনটি অংশ রয়েছে, একটি লুনার অরবিট বা চাঁদের কক্ষপথ যার নাম বিক্রম এবং একটি রোভার বা পর্যটক যার নাম প্রজ্ঞান।

মিশনের দ্বিতীয় পর্যায়ে, বিক্রমের মধ্যে থেকে প্রজ্ঞান সকাল ৫.৩০ থেকে ৬.৩০ নাগাদ খুলে যাবে এবং চন্দ্রপৃষ্ঠে দুটি বৈজ্ঞানিক যন্ত্রাংশ স্থাপন করবে। সেখানে পরীক্ষার জন্য আরও তিনটি বৈজ্ঞানিক যন্ত্রাংশ স্থাপন করবে বিক্রম। অরবিটার বা কক্ষে থাকবে আরও আটটি যন্ত্রাংশ যার মাধ্যমে চাঁদের বহিরাংশের বায়ুমণ্ডল এবং পৃষ্ঠ নিয়ে পরীক্ষা চালাবে।

vpvf8ng

চাঁদের দক্ষিণ মেরু সংলগ্ন অঞ্চলে অবতরণ করবে চন্দ্রায়ণ ২

২২ জুলাই চাঁদে যাত্রা করে চন্দ্রায়ন ২, প্রথমবারে ৫৬ মিনিট ২৪ সেকেন্ডে উৎক্ষেপণ বাতিল হয়ে যায়। যান্ত্রিক ত্রুটি ধরা পড়ায় প্রথমবারে উৎক্ষেপণ বাতিল করে দেওয়া হয়। “অতিরিক্ত সতর্কতা হিসেবে” এই পদক্ষেপ বলে জানায় ইসরো।

প্রথমবারের ব্যর্থতার পর, দ্বিতীয়বারে সফল হন ইসরোর বৈজ্ঞানিকরা। GSLV Mark 3, দেশের সবচেয়ে বড় শক্তিশালী এবং শক্তিশালী বাহুবলী রকেটে দ্বিতয়ীবার উৎক্ষেপণ করা হয়। ৩,৭৪০ কেজি ওজনের চন্দ্রযানটি রাত ২.৩৪ নাগাদ অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটা থেকে সফলভাবে উৎক্ষেপণ করা হয়।

২০২২ মহাকাশ যান মিশনেরও প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসরো, তিনজন মহাকাশচারী থাকবেন সেই মিশনে। সশ্বস্ত্র বাহিনী থেকে তিনজন পাইলটকে রাশিয়ায় প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে তার জন্য। আগামী মাসের মধ্যে তাঁদের তালিকা তৈরি হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

মহাকাশ যান মিশনে ১০,০০০ কোটি টাকা খরচ হবে বলে মনে করা হচ্ছে, তারমধ্যে রয়েছে প্রযুক্তি বিভাগ, বিমানের যন্ত্রাংশ সম্পর্কিত এবং প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো সামগ্রি। দুজন অঘোষিত এবং একজন ঘোষিত বিমান চালক থাকবে মিশনে।