"সদ্যজাতকে নেওয়ার মতোই সাবধানী":Chandrayaan 2-এর অবতরণ প্রসঙ্গে ইসরো প্রধান

Chandrayaan 2: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই অবতরণ প্রক্রিয়াটি সরাসরি দেখতে মধ্যরাতে বেঙ্গালুরুর ইসরো সদর দফতরে থাকবেন

 Share
EMAIL
PRINT
COMMENTS

ISRO Chief ডঃ কে সিভান জানিয়েছেন, চন্দ্রযান ২ এর চাঁদে অবতরণ যেন "১৫ মিনিটের আতঙ্ক" অবস্থা


বেঙালুরু: 

শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাত ১টা বেজে ৫৫ মিনিটে ভারতের চন্দ্রযানটির (Chandrayaan 2) চাঁদের পৃষ্ঠে ধীরে ধীরে অবতরণ করার কথা রয়েছে। ৩০ কিলোমিটারের চূড়ান্ত কসরতের পর কোনও সমস্যা ছাড়াই চাঁদের পৃষ্ঠে রোভার ল্যান্ড অবতরণ পর্যন্ত অবস্থাটি ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরোর বিজ্ঞানীদের কাছে যেন  "১৫ মিনিটের আতঙ্ক" অবস্থা। এই উত্তেজনার সময়ের প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে ইসরো (ISRO) প্রধান ডঃ কে সিভান এনডিটিভিকে জানান, "হঠাৎ করেই কেউ এসে আপনার হাতে এক নবজাতককে তুলে দিল, নির্দিষ্ট কায়দা না জানলে আপনি কি তাঁকে ধরে রাখতে পারবেন ? শিশুটি নিজের ইচ্ছেমতো হাত-পা নাড়বে, কিন্তু আমাদের তাকে সামলে নিয়ে ধরে রাখতে হবে। ঠিক এইরকমই, ল্যান্ডার একবার এদিকে যাবে তো একবার ওদিকে যাবে, কিন্তু আমাদের ঠিক ওই নবজাতক সামলানোর মতোই তাঁকে সামলাতে হবে"।

চাঁদের পৃষ্ঠে অবতরণকারী বিক্রম যা অরবিট থেকে পৃথক হয়ে ইতিমধ্যেই চাঁদের থেকে নিজের দূরত্ব কমিয়ে এনেছে শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাত ১:৩০ থেকে ২:৩০-এর মধ্যে চাঁদের মাটি ছোঁবে। "এটি একটি অত্যন্ত জটিল প্রক্রিয়া, এবং গোটা বিষয়টিই আমাদের কাছে নতুন। এমনকি ইতিমধ্যেই যাঁদের এই সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁদের জন্যেও প্রতিটি মুহূর্ত অত্যন্ত জটিল, আমরা এটা প্রথমবারের জন্যে করছি, সুতরাং এই পনেরো মিনিট আমাদের কাছে হবে ১৫ মিনিটের আতঙ্কের মুহূর্ত", বলেন ইসরো প্রধান ডঃ সিভান।

Chandrayaan 2: প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বসে চন্দ্রযানের অবতরণ দেখবে ৭০ ছাত্র

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি স্বয়ং এই অবতরণ প্রক্রিয়াটি সরাসরি দেখতে মধ্যরাতে বেঙ্গালুরুর ইসরো সদর দফতরে থাকবেন। গত মাসে সারাদেশের মধ্যে আয়োজিত মহাকাশ সংক্রান্ত ক্যুইজে সফল হওয়া ৬০ টিরও বেশি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বসে চাঁদের মাটি ছোঁয়ার এই মুহূর্তের সাক্ষী থাকবেন। 

চন্দ্রযান-২ মিশন সফল হলে আমেরিকা, রাশিয়াও চিনের পর চতুর্থ দেশ হিসেবে চাঁদে সঠিক ভাবে অবতরণের কৃতিত্ব ‌অর্জন করবে ভারত। চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণ করবে সেটি। চাঁদের এই দিকটি এখনও মা‌নুষের কাছে অনেকটাই অজ্ঞাত রয়েছে।

২২ জুলাই দক্ষিণ অন্ধ্র প্রদেশের শ্রীহারিকোটায় অবস্থিত ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরোর স্পেসপোর্ট থেকে চন্দ্রযান ২ এর উৎক্ষেপণ করা হয়। দ্বিতীয় প্রয়াসে এটি মহাকাশে রওনা দেয়। কেননা এর ঠিক এক সপ্তাহ আগে উৎক্ষেপণের কথা থাকলেও কিছু প্রযুক্তিগত ত্রুটি চোখে পড়ায় শেষমুহূর্তে বাতিল করা হয় তা।

Chandrayaan 2: কক্ষপথের কৌশলে চূড়ান্ত সাফল্য, ভারতের চাঁদে অবতরণ শুধু সময়ের অপেক্ষা

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার থেকে ২০ ভাগ কম খরচে ইসরো চন্দ্রাভিযানের পরিকল্পনা করেছে। ১০০০ কোটি টাকা খরচ হয়েছে এই মিশন বাবদ, যা সাম্প্রতিক হলিউড ব্লকবাস্টারের (অ্যাভেঞ্জার্স: এন্ড গেম) তৈরির থেকে কম! চন্দ্রযান-২ সম্পর্কে ইসরোর চেয়ারম্যান কে সিভান জানিয়েছেন, চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণের পরে চাঁদের মাটিতে প্রাকৃতিক সম্পদের সন্ধান করবে সেটি। খুঁজে দেখবে চাঁদে জলের অস্তিত্ব। এবং অবশ্যই ‘হাই রেজলিউশন' ছবি তুলে আনবে।



পশ্চিমবঙ্গের খবর, কলকাতার খবর , আর রাজনীতি, ব্যবসা, প্রযুক্তি, বলিউড আর ক্রিকেটের সকল বাংলা শিরোনাম পড়তে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

NDTV Beeps - your daily newsletter

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................