মোদীর সভায় শামিয়ানা ভেঙে পড়ার তদন্তের জন্য মেদিনীপুরে এল কেন্দ্রীয় দল

সোমবার মেদিনীপুরে প্রধানমন্ত্রীর সভায় শামিয়ানা ভেঙে যাওয়ায় আহত হয়েছিলেন 90 জন

মোদীর সভায় শামিয়ানা ভেঙে পড়ার তদন্তের জন্য মেদিনীপুরে এল কেন্দ্রীয় দল
কলকাতা:

সোমবার মেদিনীপুরে প্রধানমন্ত্রীর সভায় শামিয়ানা ভেঙে যাওয়ায় আহত হয়েছিলেন 90 জন। গতকাল ওই দুর্ঘটনার সরেজমিনে তদন্তের জন্য রাজ্যে উপস্থিত হল কেন্দ্রের বিশেষ দল। ওই দলটিতে রয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের যুগ্মসচিব অনিতা ভাটনগর এবং স্পেশ্যাল প্রোটেকশন গ্রুপ বা এসপিজির দুজন পদস্থ অফিসার এস কে সিং ও এম সিদ্ধি। গতকাল বিকেলে মেদিনীপুরে নামেন তাঁরা।

কেন্দ্রের এই বিশেষ দলটি পরীক্ষা করে দেখবে, ঘটনাস্থলে আদৌ কোনও সমস্যা ছিল কি না। এছাড়া, বিভিন্ন সংস্থার মধ্যে সমন্বয়ের অভাব ছিল কি না বা সভাস্থলে অন্যান্য কোনও ত্রুটি ছিল কি না, খতিয়ে দেখা হবে তাও। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের এক আধিকারিক এই কথা জানান।

সূত্রের কাছ থেকে জানা গিয়েছে, কেন্দ্রের ওই বিশেষ দলটি পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলাশাসক, সুপারিনটেনডেন্ট অব পুলিশ, জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক এবং যে হাসপাতালে আহতদের ভর্তি করা হয়, সেই হাসপাতালের অধ্যক্ষের সঙ্গে দেখা করেন। দীর্ঘসময় ধরে তাঁদের মধ্যে বৈঠক চলে। জেলা বিভিন্ন দফতরের প্রধান আধিকারিকদের আলাদা করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

মোদীর সভায় দুর্ঘটনা নিয়ে গতকালই পশ্চিমবঙ্গের সরকারের কাছ থেকে রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে কেন্দ্র। জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এডিজি (আইবি) সিদ্ধিনাথ গুপ্ত এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের এসপি অলোক রাজোরিয়া ওইদিনই ঘটনাস্থলে গিয়ে আক্রান্তদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

যে মাঠটিতে সভা হয়েছিল, তা আপাতত ‘সিল’ করে রাখা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলের সিসটিভি ফুটেজও সংগ্রহ করছে।

সূত্র জানিয়েছে, ফুটেজ সংগ্রহ করতে গিয়ে পুলিশ দেখতে পায়, অনেক জায়গায় সিসিটিভি ঠিকভাবে কাজ করছে না।

সংবাদসংস্থা পিটিআইকে অলোক রাজোরিয়া জানান, আয়োজক এবং ডেকরেটরের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে, ওই শামিয়ানা তৈরিতে যে যে লোহার রড ব্যবহার করা হয়েছিল, তার মধ্যে বেশ কিছু রডে জং ধরে গিয়েছিল। এছাড়া, বেশিরভাগ রডই মাঠে ঠিকভাবে পোঁতা হয়নি বলে জানান এক পদস্থ পুলিশ কর্তা।

“মাঠটা বৃষ্টির জন্য ভিজে থাকার দরুণ, রডগুলোকে আরও গভীরে পৌঁতা উচিত ছিল”, বলেন তিনি।

রাজ্য সরকারের এক পদস্থ কর্তা বলেন, রাজ্যের পক্ষ থেকে গোয়েন্দা সংস্থা সিআইডি ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করে দিয়েছে।

তিনি বলেন, সিআইডি তদন্ত করতে গিয়ে দেখতে পায়, একদম শেষ মুহূর্তে কিছু বদল হয়েছিল ওই শামিয়ানাটিতে।

“যে জায়গায় লোহার রডগুলি পোঁতা হয়, সেখানকার মাটি ভীষণ নরম। বৃষ্টির ফলে অত্যন্ত নরম হয়ে যাওয়া মাটি আর অত বড়ো লোহার রডের ওজন ধরে রাখতে পারেনি”, বলেন তিনি।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদিত করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে.)