অশান্ত যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যপাট, শুক্রবারের বিক্ষোভে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১

UP Citizenship Act Protest: বৃহস্পতিবার লখনউতে আরও এক ব্যক্তির মৃত্যু হয় এবং সব মিলিয়ে উত্তরপ্রদেশ রাজ্যে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ১২ জনে গিয়ে দাঁড়িয়েছে

অশান্ত যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যপাট, শুক্রবারের বিক্ষোভে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে অগ্নিগর্ভ উত্তরপ্রদেশ

হাইলাইটস

  • বিক্ষোভের আগুনে পুড়ছে যোগী আদিত্যনাথের রাজ্য
  • উত্তরপ্রদেশে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে সহিংস বিক্ষোভ
  • শুক্রবার বিক্ষোভে অগ্নিগর্ভ হয় সে রাজ্য, মৃত মোট ১২ জন বিক্ষোভকারী
লখনউ:

অশান্ত যোগী-র রাজ্য (Uttar Pradesh), শুক্রবারের বিক্ষোভের ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১১ জন।উত্তরপ্রদেশ পুলিশ ৯ জন বিক্ষোভকারীদের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে এবং তাঁরা জানিয়েছে যে এই নিয়ে শুক্রবারের প্রতিবাদ আন্দোলন (UP Citizenship Act Protest) ঘিরে মোট এগারো জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার লখনউতে আরও এক ব্যক্তির মৃত্যু হয় এবং সব মিলিয়ে উত্তরপ্রদেশ রাজ্যে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ১২ জনে গিয়ে দাঁড়িয়েছে। সংসদে পাস হওয়ার পর রাষ্ট্রপতির অনুমোদন প্রাপ্ত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে বলা হয়েছে, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে যে সব অমুসলিম মানুষরা ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হয়ে ভারতে আশ্রয় নিয়েছেন তাঁরা এবার ভারতীয় নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে পারবেন। 

সমালোচকদের মতে এই নয়া সংশোধিত আইনটি মুসলিমদের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণ করছে এবং এটি সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষ নীতিগুলি লঙ্ঘন করেছে।

১১ ডিসেম্বর নতুন এই আইনে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ স্বাক্ষর করার পর থেকেই উত্তাল হয় গোটা দেশ। বিক্ষোভে উত্তপ্ত হয় উত্তরপ্রদেশও। নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যের ১৩ টি জেলায় শুক্রবার দুপুরে রাজ্যব্যাপী জারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে হাজার হাজার মানুষ পথে নেমে আসে। অভিযোগ, প্রতিবাদীরা গাড়ি ভাঙচুর করার পাশাপাশি পাথরও ছুঁড়তে থাকে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়তে থাকে। মীরাট, মুজাফফনগর, বাহরাইচ, বুলন্দশহর, গোরক্ষপুর, ফিরোজাবাদ, আলিগড়, ফারাক্কাবাদে অশান্তির কথা জানা গিয়েছে। প্রায় দু'মিনিটের ভিডিওতে শুক্রবার গোরক্ষপুরে হওয়া হওয়া অশান্তির দৃশ্য দেখা গিয়েছে। বিক্ষোভকারী-পুলিশ সংঘর্ষের সময় মৃত্যু হয় ১১ জনের। ৫০ জনেরও বেশি পুলিশকর্মী আহত হন বলে খবর।

উত্তরপ্রদেশের বিক্ষোভকারী-পুলিশ সংঘর্ষ, বন্ধ ইন্টারনেট, নতুন করে বিক্ষোভ দিল্লির জামিয়াতেও

অভিযোগ ওঠে যে, পুলিশের চালানো গুলিতেই মৃত্যু হয়েছে বিক্ষোভকারীদের। কিন্তু সেই অভিযোগ খারিজ করে দিয়ে যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যের পুলিশ কর্তা স্পষ্ট জানান যে কোনওভাবেই বিক্ষোভ মিছিলকে লক্ষ্য করে কোনও গুলি চালায়নি পুলিশ।

উত্তরপ্রদেশের পুলিশ প্রধান ওপি সিং এনডিটিভিকে জানিয়েছেন, "ওই জেলাগুলিতে জুমার নমাজ পাঠের পরে হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নামেন। আমরা শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ সামলানোর চেষ্টা করেছি। এর আগে আমাদের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয় যে বিক্ষোভ শান্তিপূর্ণই হবে", জানান পুলিশ কর্তা।

"গুলি চালানো হয়নি": উত্তরপ্রদেশে ৯ বিক্ষোভকারীর মৃত্যু প্রসঙ্গে পুলিশ কর্তা

"কিন্তু পরে দেখা যায় ধীরে ধীরে বিক্ষোভ সহিংস রূপ নেয়। পাথর ছোঁড়া শুরু হয়, বিভিন্ন জায়গায় আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। বিক্ষোভকারীদের হাতে অবৈধ অস্ত্রও ছিল, তা থেকেই গুলি চালায় তাঁরা। আমি মনে করি না পুলিশের কাছে অন্য কোনও বিকল্প ছিল। তবে আমি এটা স্পষ্ট করে বলতে পারি যে কোনওভাবেই পুলিশ একটিও গুলি চালায়নি। প্রতিবাদকারীদের লক্ষ্য করে একটিও গুলি চালায়নি তাঁরা। বিক্ষোভকারীরা নিজেদের মধ্যেই গুলি বিনিময়ের সময় মারা যান। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পরেই বিষয়টি আরও পরিষ্কার হয়ে যাবে", বলেন তিনি।

চোখ রাখুন দেশের অন্যান্য খবরেও, দেখুন ভিডিও:

More News