প্রথম শিশু প্রসবের ২৬ দিন পর ফের যমজ প্রসব বাংলাদেশি মায়ের, তাজ্জব চিকিৎসকেরা

ডাঃ শীলা পোদ্দার বলেন, “প্রথম শিশুর জন্মের ২৬ দিন পর আবার তাঁর জল ভেঙে যায়। তখনই সে আমাদের কাছে এসেছিল।”

 Share
EMAIL
PRINT
COMMENTS
প্রথম শিশু প্রসবের ২৬ দিন পর ফের যমজ প্রসব বাংলাদেশি মায়ের, তাজ্জব চিকিৎসকেরা

চিকিৎসক দিলীপ রায় বলেন, “আমি আমার তিরিশ বছরেরও বেশি চিকিৎসার জীবনে এমন কোনও ঘটনা দেখিনি।”


ঢাকা: 

সময়ের আগেই প্রথম সন্তানের জন্ম দিয়েছিলেন এই যুবতী। সেই শিশুর জন্মের ঠিক ২৬ দিন পর সুস্থ অবস্থায় যমজ সন্তানের ফের জন্ম দিলেন বাংলাদেশি এই মা। এমন নজিরবিহীন ঘটনায় চিকিৎসকেরাও স্তব্ধ। ২০ বছর বয়সী আরিফা সুলতানা স্বাভাবিক প্রসবের মাধ্যমেই গত মাসে একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছিলেন, কিন্তু তখন দ্বিতীয় গর্তের উপস্থিতি বুঝতে পারেননি চিকিৎসকেরা।

স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ শীলা পোদ্দার বলেন, “প্রথম শিশুর জন্মের ২৬ দিন পর আবার তাঁর জল ভেঙে যায়। তখনই সে আমাদের কাছে এসেছিল। ও জানতও না যে, সে তখনও জমজ সন্তান সহ গর্ভবতী।” গত শুক্রবার শীলা পোদ্দারই অস্ত্রোপচার করে যমজ এক ছেলে ও এক মেয়েকে জন্ম দেন। 

বাংলাদেশি ঠিকা শ্রমিকের ছবি ভাইরাল বিশ্বে, কী আছে তাঁর চোখের চাহনিতে?

মঙ্গলবার দক্ষিণ-পশ্চিম বাংলাদেশের যশোর জেলার (Jessore district) ওই যুবতীকে তাঁর তিন সুস্থ শিশুকে নিয়ে বাড়ি যাওয়ার অনুমতি পান। চিকিৎসক জানিয়েছেন, কোনও শারীরিক জটিলতা নেই। যশোরের প্রধান সরকারি চিকিৎসক দিলীপ রায় বলেন, “আমি আমার তিরিশ বছরেরও বেশি চিকিৎসার জীবনে এমন কোনও ঘটনা দেখিনি।”

তবে, দ্বিতীয় গর্ভাবস্থা সনাক্ত না করার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকদের অবহেলা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন দিলীপ রায়। দরিদ্র পরিবারের সুলতানা জানিয়েছেন তিন সন্তানের জন্ম দিয়ে তিনি খুশি। কিন্তু কীভাবে তাঁদের মানুষ করবেন এই চিন্তাই ভাবাচ্ছে তাঁকে।

 ২৭ দিনে পড়ল এসএসসি-র অনশন, নিজেদের অবস্থানে এখনও অনড় চাকরিপ্রার্থীরা

সংবাদ সংস্থা এএফপিকে সুলতানা বলেন, “আমার স্বামী একজন শ্রমিক, মাসে খুব বেশি হলে ৬০০০ টাকা আয় করেন। আমি জানি না আমাদের এই সামান্য টাকায় এতগুলো পেট কীভাবে চালাব!”

সুলতানার স্বামী সুমন বিশ্বাস অবশ্য বেশ আত্মবিশ্বাসী। তাঁর কথায়, “আল্লার দোয়ায় অলৌকিকভাবে আমার সব শিশু সুস্থ। আমি তাদের সুখী রাখার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করবো।”



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)

NDTV Beeps - your daily newsletter

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................