অযোধ্যা বিষয়ে উল্টোপাল্টা মন্তব্য করবেন না: রায় ঘোষণার আগে নিজের মন্ত্রীদের নির্দেশ মোদির

Ayodhya Verdict: প্রধানমন্ত্রী দেশে এই মুহুর্তে মৈত্রী ও সম্প্রীতির পরিবেশ বজায় রাখার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেই এই মন্তব্য করেন।

অযোধ্যা বিষয়ে উল্টোপাল্টা মন্তব্য করবেন না: রায় ঘোষণার আগে নিজের মন্ত্রীদের নির্দেশ মোদির

ভারতের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ১৭ নভেম্বর অবসর নেওয়ার আগে সুপ্রিম কোর্ট অযোধ্যা ইস্যুতে রায় দেবে বলে আশা করা হচ্ছে

নয়াদিল্লি:

আলটপকা মন্তব্য করবেন না! অযোধ্যা ইস্যুতে (Ayodhya issue) সুপ্রিম কোর্টের রায় ঘোষণার আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Prime Minister Narendra Modi) বুধবার দিল্লিতে তাঁর মন্ত্রিপরিষদকে এমনই নির্দেশ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী তার মন্ত্রীদের সঙ্গে অযোধ্যা মামলার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করার পাশাপাশি সকলকে এই বিষয়ে অপ্রয়োজনীয় মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকতে এবং দেশে সম্প্রীতি বজায় রাখতেই বলেছেন বলে সূত্রের খবর। মন্ত্রিপরিষদের এক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী দেশে এই মুহুর্তে মৈত্রী ও সম্প্রীতির পরিবেশ বজায় রাখার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেই এই মন্তব্য করেন। ভারতের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ (Chief Justice of India Ranjan Gogoi) ১৭ নভেম্বর অবসর নেওয়ার আগে সুপ্রিম কোর্ট অযোধ্যা ইস্যুতে রায় দেবে বলে আশা করা হচ্ছে।

আরও পড়ুনঃ “তথ্য এবং প্রমাণ, বিশ্বাস নয়”, অযোধ্যা মামলা নিয়ে বললেন শীর্ষ মৌলবি

২৭ অক্টোবর ‘মন কি বাত' রেডিও অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী মোদি পুরনো দিন ও ঘটনার স্মৃতিচারণ করেন। তিনি জানান, অযোধ্যার বিতর্কিত জমির বিষয়ে ২০১০ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায় দেওয়ার সময় তৎকালীন সরকার, রাজনৈতিক দলগুলি এবং সুশীল সমাজ কীভাবে বিড়ম্বনা সৃষ্টির প্রচেষ্টা করেছিল। ঐক্যবদ্ধ কন্ঠ কীভাবে দেশকে শক্তিশালী করতে পারে তার উদাহরণ হিসাবেই এই কথার উল্লেখ করেন নরেন্দ্র মোদি।

সূত্রের খবর, প্রধানমন্ত্রী মোদি তার মন্ত্রিপরিষদকে জানিয়েছেন এ বিষয়ে অপ্রয়োজনীয় মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকতে হবে তাদের এবং সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির পরিবেশ বজায় রাখতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী মোদি আরও জোর দিয়ে বলেছেন যে, বিজয় এবং পরাজয়ের দাঁড়িপাল্লায় এই রায়টিকে দেখা উচিৎ হবে না।

আরও পড়ুনঃ “বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্ব অযোধ্যা মামলা”, বললেন ভাবী প্রধানবিচারপতি এসএ বোবদে

কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপি তার কর্মীদের এবং মুখপাত্রদের রাম মন্দির ইস্যুতে উস্কানিমূলক বক্তব্য দেওয়া থেকে বিরত থাকতেই নির্দেশ দিয়েছে। শান্তি বজায় রাখার জন্য সংসদ সদস্যদের তাদের নির্বাচনী এলাকা পরিদর্শন করতেও বলেছে বিজেপি।

ক্ষমতাসীন বিজেপির আদর্শগত পরামর্শদাতা, রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস) কিছুদিন আগেই সংঘ কর্মীদের প্রতিও এমনই সাবধানতা জারি করেছে। সংঘের শীর্ষ নেতারা সম্প্রতি ‘প্রচারকদের' বৈঠকে রাম মন্দিরের রায় যদি তাদের পক্ষেও যায় তবুও কোনও বিশেষ উদযাপন বা মিছিল না করার জন্যই নির্দেশ দিয়েছে।

আরএসএস এবং বিজেপির বরিষ্ঠ নেতারা মঙ্গলবার বিশিষ্ট মুসলিম নেতা ও বুদ্ধিজীবীদের কাছে যান, এবং তাদের সঙ্গে একটি বৈঠকও করেন। জাতীয় রাজধানী দিল্লিতে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মুখতার আব্বাস নকভির বাসভবনে এই বৈঠকের আয়োজন হয়েছিল।

পাঁচ বিচারকের সংবিধান বেঞ্চ ৪০ দিনের ম্যারাথন শুনানির পরে ১৬ অক্টোবর অযোধ্যা জমি বিতর্ক মামলায় রায় সংরক্ষণ করে।

More News