অযোধ্যা মামলায় দৈনিক শুনানি শেষ সুপ্রিম কোর্টে, রায়দান স্থগিত

Ayodhya case: ১৭ নভেম্বর, রঞ্জন গগৈয়ের অবসরের আগেই, অযোধ্যা মামলার রায়দান হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে

Ayodhya Case: কয়েক দশকের পুরানো এই মামলাটির নিষ্পত্তি করতে ব্যর্থ হয় বহু মধ্যস্থতাকারী।

নয়াদিল্লি:

অযোধ্যায় (Ayodhya) রাম জন্মভূমি-বাবরি মসজিদ (Ram Janmabhoomi-Babri Masjid) নিয়ে রাজনৈতিক স্পর্শকাতর মামলার দৈনিক শুনানি বুধবার শেষ হল সুপ্রিম কোর্টে, এই মামলায় রায়দান স্থগিত রেখেছে শীর্ষ আদালত। প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ বলেন, “যথেষ্ঠ হয়েছে”, পাশাপাশি তিনি বলেন, বুধবার সন্ধ্যে ৫টার মধ্যে  শুনানি শেষ করবেন, অযোধ্যা মামলায় (Ayodhya case) আরও সওয়ালের  সময় চান এক আইনজীবী, তারপরেই একথা জানিয়ে দেন প্রধানবিচারপতি। ১৭ নভেম্বর আদালত রায় দিতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। অযোধ্যা মামলা নিয়ে সুষ্টুভাবে কোনও নিষ্পত্তি বের করতে ব্যর্থ হয় মধ্যস্থতাকারীরা, তারপরেই ৬ অগস্ট সুপ্রিম কোর্টে অযোধ্যা মামলা নিয়ে দৈনিক শুনানি শুরু হয় পাঁচ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চে। 

"আমরা ওয়াক আউট করব": অযোধ্যা শুনানির পরিপ্রেক্ষিতে বললেন প্রধান বিচারপতি

সোমবার, দশেরার ছুটির পর, দৈনিক শুনানি শুরু করে সুপ্রিম কোর্ট। মুসলিম প্রতিনিধিদের বক্তব্য শোনে শীর্ষ আদালত, তারা আদালতে জানান, ১৯৮৯ এর আগে পর্যন্ত জমি নিয়ে হিন্দুদের তরফে কোনও দাবি ছিল না। ডিসেম্বর ১৯৯২-এ বাবরি মসজিদ ভাঙার আগে, সেখানে যেভাবে বাবরি মসজিদ ছিল, সেভাবে ফিরিয়ে আনার দাবি জানান মুসলিম প্রতিনিধিরা।

২০১০-এ এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে ১৪টি মামলা দায়ের হয়, সেখানে বলা হয়, অযোধ্যার ২.৭৭ একর জমি সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, নির্মোহি আখরা এবং রাম লালার মধ্যে সমানভাবে ভাগ করে দেওয়া হবে।

Ayodhya Case: বাবরি মসজিদ আবার তৈরি হোক, সুপ্রিম কোর্টে আর্জি মুসলিমদের

অনেক হিন্দুদের বিশ্বাস, জায়গাটি ভগবান রামচন্দ্রের জন্মভূমি, এবং প্রাচীন মন্দিরের ভগ্নাবশেষের ওপরে মসজিদ তৈরি করা হয়। ১৯৯২-এর ডিসেম্বরে দক্ষিণপন্থী সংগঠনের তরপে ১৬ শতকের বাবরি মসজিদ ভেঙে দেওয়া হয়। তাকে কেন্দ্র করে দেশজুড়ে হিংসা ছড়ায়।

আজকের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি দেখতে ক্লিক করুন:

কয়েক দশকের পুরানো এই মামলাটির নিষ্পত্তি করতে ব্যর্থ হয় বহু মধ্যস্থতাকারী।

More News