বামন স্কুলপড়ুয়াকে সহপাঠীদের নিপীড়ন! মরতে চেয়ে মায়ের কাছে আর্তি শিশুর

বয়সের নিরিখে উচ্চতায় বামন ব্রিসবেনের কোয়াডেন। ফলে শারীরিক এই প্রতিবন্ধকতার কারণে স্কুলে হাসি-ঠাট্টার মুখে পড়তে হয় তাকে ।

বামন স্কুলপড়ুয়াকে সহপাঠীদের নিপীড়ন! মরতে চেয়ে মায়ের কাছে আর্তি শিশুর

উচ্চতা নিয়ে স্কুলে ক্রমাগত নিপীড়িত হয়ে ন'বছরের কোয়াডেন কান্নায় ভেঙে পড়েছে।

হাইলাইটস

  • বামন বলে স্কুলে নিত্য নিপীড়ন।
  • সহপাঠীদের অত্যাচার সজ্য করতে না পেরে মরতে চেয়ে আর্তি ব্রিসবেনের কোয়াডেনের
  • মায়ের তোলা সেই ভিডিও দেখে এখন নেট দুনিয়ায় ছিঃ ছিঃ-কার

বয়সের নিরিখে উচ্চতায় বামন ব্রিসবেনের (Brisbane Child) কোয়াডেন। ফলে শারীরিক এই প্রতিবন্ধকতার (Dwarfism) কারণে স্কুলে হাসি-ঠাট্টার মুখে পড়তে হয় তাকে । সহপাঠীদের তরফে চলে নিপীড়নও। ক্রমাগত সেই অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে এবার মরতে চেয়ে মায়ের কাছে আর্তি সেই নয় বছরের স্কুলপড়ুয়ার। কোয়াডেনের মা ইয়ারাকা বেলিসের তোলা সেই ভিডিও ফেসবুকে দেখে এখন উদ্বিগ্ন মনরোগ বিশেষজ্ঞরা। সেই পোস্টের নীচে বেলিসের মন্তব্য, "মানসিক নিপীড়ন কীভাবে শিশু মনে প্রভাব ফেলে দেখুন।"  কোয়াডেনের প্রায় ৭ মিনিটের যে ভিডিও তার মা সোশাল সাইটে দিয়েছেন, তাতে দেখা গিয়েছে; ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কেঁদেই চলেছে সেই খুদে। আর বলছে, "আমাকে একটা দড়ি দাও, নিজেকে শেষ করে দেবো। ছুরির আঘাতে ক্ষতবিক্ষত করব। আমি চাই কেউ আমাকে মেরে ফেলুক।" 

মহিলা টি২০ বিশ্বকাপ লাইভ: অস্ট্রেলিয়ার সামনে ১৩৩ রানের লক্ষ্যমাত্রা

সেই ভিডিওতে বেলিসকে বলতে শোনা গিয়েছে, "মা হিসেবে আমি ব্যর্থ। আমার মনে হয় শিক্ষাব্যবস্থাও ব্যর্থ।" তিনি আরও বলেন, "আমি কোয়াডেনকে স্কুলে আনতে গিয়ে দেখি এক সহপাঠী অর উচ্চতা নিয়ে হাসি-ঠাট্টা করছে। ওকে শাসাচ্ছে। আমাকে দেখেই ও আতঙ্কে গাড়ির দিকে ছুটে আসে। ও চায়নি আমি ভরা স্কুলে সেই সহপাঠীকে কিছু বলি। তারপরেই গাড়িতে উঠে কাঁদতে শুরু করে।" দেখুন সেই ভিডিও--       

সেই ভিডিওতে বেলিসের আবেদন, "আমি প্রত্যেক অভিভাবকদের অনুরোধ করছি দেখুন স্কুলে পীড়নের ফলে কী অবস্থা হয়। আমার মতো অনেক মায়ের সন্তান, যারা শারীরিকভাবে পিছিয়ে এমন নিপীড়নের শিকার। তাই অনুরোধ করছি আপনাদের সন্তানদের শিক্ষা দিন, কার সঙ্গে কেমন আচরণ করা উচিত। নয়তো কোয়াডেনের মতো অন্যরাও আত্মহত্যাপ্রবণ হয়ে উঠবে।" তিনি দাবি করেছেন, প্রতিবন্ধকতা সম্বন্ধে সচেতন করতে স্কুলে বিশেষ পাঠ্যক্রম চালু করা হোক। একবার একটু ভেবে দেখুন সেই পরিবারগুলোর অবস্থা, যাদের সন্তান আমার কোয়াডেনের মতোই শারীরিক ভাবে পিছিয়ে।"

য়ে-জামাইকে সঙ্গে নিয়ে সস্ত্রীক ভারত সফরে আসছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প: সূত্র

বেলিসের এই আবেদনের সমর্থনে এগিয়ে এসেছে একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। টুইটারে হ্যাশট্যাগ কোয়াডেন ব্যানারে চলছে সচেতনতার প্রচার। অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় রাগবি দলও সেই খুদের সমর্থনে এগিয়ে এসে বেলিসের ভিডিওতে সহমর্মিতা জানিয়েছে।