“প্রত্যেকটি অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকে তাড়ানো হবে”, অসমে বললেন অমিত শাহ

Assam NRC: এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের পর, বাঙালি হিন্দুদের বড় অংশের নাম বাদ পড়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন বিজেপি নেতৃত্বের একাংশ

২ দিনের অসম সফরে অমিত শাহ

গুয়াহাটি:

৩১ অগস্ট অসমের জাতীয় নাগরিকপঞ্জীর চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হয়, ১৯ লক্ষেরও বেশী মানুষকে বিদেশী বলে ঘোষণা করা হয়। রবিবার তা নিয়ে মুখ খুললেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তিনি ঘোষণা করেন, “প্রত্যেকটি অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকে তাড়ানো হবে”। তিনি আরও ঘোষণা করেন, সংবিধানের ৩৭১ ধারা, যা উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলিকে বিশেষসুবিধা দিয়ে থাকে, তা প্রত্যাহার করা বা বিকল্প করার কোনও উদ্দেশ্য নেই কেন্দ্রের। রবিবার অসমের গুয়াহাটিতে উত্তর-পূর্বের কাউন্সিল বৈঠকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “জাতীয় নাগরিকপঞ্জী নিয়ে বিভিন্ন  মানুষ বিভিন্নরকম প্রশ্ন তুলেছেন। আমি স্পষ্টভাবে বলতে চাই, ভারত সরকার, একজন অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকেও এদেশে থাকতে দেবে না। এটা আমাদের প্রতিশ্রুতি”।

Assam NRC List: ফৌজি গ্রামে তালিকা থেকে বাদ পড়লেন দেশের সুরক্ষায় নিযুক্ত জওয়ানরাই!

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর, এই প্রথমবার অসম সফরে গেলেন অমিত শাহ।১৯৫৮ সশ্বস্ত্র আইনে (বিশেষ ক্ষমতা) অসমকে সবচেয়ে উপদ্রুত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার।

অসমের জাতীয় নাগরিকপঞ্জীর চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের পর, বহু বাঙালি হিন্দুর নাম বাদ পড়ায় ক্ষুব্ধ বিজেপি নেতৃত্বের একাংশ, এই বাঙালি হিন্দুদের সংখ্যা অসমের মোট জনসংখ্যার ১৮ শতাংশ এবং দলেরও ভোটব্যাঙ্ক হিসেবে কাজ করত এই বাঙালি হিন্দুদের সংখ্যা। অসমের নিম্নবর্তী জেলাগুলিতে এনআরসি থেকে বাদ পড়া সবচেয়ে বেশী  উদ্বেগ দেখা যায়, এই এলাকায় মুসলিম শরণার্থীদের সংখ্যাই বেশী।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে অসমে ১৪টি আসনে জিতেছে বিজেপি, তারমধ্যে রয়েছে আদিবাসী, অসমের হিন্দু ও বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ে ভোট।

Assam NRC List: প্রায় সাড়ে তিন কোটি মানুষের নাগরিকপঞ্জী তৈরির নেপথ্যের আইএএস আধিকারিককে চেনেন?

NDTV এর সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে, বিজেপি বিধায়ক শিলাদিত্য দেব অভিযোগ করেন, “হিন্দুদের তাড়ানো এবং মুসলিমদের সাহায্য” করারই অংশ এনআরসি। তিনি আরও অভিযোগ করেন, এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা দুর্নীতিতে ভরা।

গত বছর, অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠক করে জাতীয় নাগরিকপঞ্জীর চূড়ান্ত তালিকা পরিষদীয় আইন বা অধ্যাদেশের মাধ্যমে পুনরায় পরীক্ষার প্রস্তাব দেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দন সোনওয়াল।

চলতি বছরের গোড়ার দিকে, লোকসভা নির্বাচনে রাজস্থানে প্রচারের সময়, বাংলাদেশী শরণার্থীদের উইপোকা বলে মন্তব্য করেন অমিত শাহ।

উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলিকে বিশেষ ক্ষমতা দেওয়া সংবিধানের ৩৭১ ধারার বদল বা প্রত্যাহারের করার কেন্দ্রের কোনও উদ্দেশ্য নেই বলেও জানান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। ৩৭০ এবং ৩৭ ধারা মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

“হিন্দুদের বিতাড়িত করার ষড়যন্ত্র”, NRC তালিকা নিয়ে অখুশী বিজেপি নেতা

জম্মু ও কাশ্মীরের মতো উত্তর-পূর্বেও পদক্ষেপ করা হতে পারে বলে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে, তা নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেন, “সংসদে আমি স্পষ্টভাবে জানিয়েছি, এটা হবে না এবং আমি উত্তর পূর্বের ৮ মুখ্যমন্ত্রী উপস্থিতিতে আজ আবারও বলছি, ৩৭১ ধারায় হাত দেবে না কেন্দ্রীয় সরকার”।

৫ অগস্ট, জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার এবং রাজ্যটিকে ভেঙে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করার ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। গোটা রাজ্যে কড়া নিরাপত্তার বেষ্টনীতে মুড়ে ফেলা হয় এবং বহু বর্ষীয়ান রাজনীতিককে গ্রেফতার করা হয়, প্রতিবাদ, বিক্ষোভ করে বিরোধীরা।