বিয়ে করলেই নববধূকে ১০ গ্রাম সোনা! অভিনব প্রকল্প অসম সরকারের

অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা জানাচ্ছেন, ‘‘আমাদের লক্ষ্য সোনা দিয়ে ভোট পাওয়া নয়, বিয়েগুলি নিবন্ধভুক্ত করানো।’’

বিয়ে করলেই নববধূকে ১০ গ্রাম সোনা! অভিনব প্রকল্প অসম সরকারের

আগামী বছরের ১ জানুয়ারি থেকে অসমে (Assam) এই প্রকল্প চালু করার কথা জানিয়েছেন, রাজ্যের অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা।

বিয়ে করলেই কনে পাবে ১০ গ্রাম সোনা (10 grams of gold )! তবে শর্ত তাঁকে অন্তত দশম শ্রেণি পাশ করতে হবে। পাশাপাশি বিয়েটিও নথিবদ্ধ করাতে হবে। এছাড়াও আরও শর্ত রয়েছে। সেগুলি মেনে চললেই ‘অরুন্ধতি স্বর্ণ প্রকল্প' অনুযায়ী মিলবে সোনা। আগামী বছরের ১ জানুয়ারি থেকে অসমে (Assam) এই প্রকল্প চালু করার কথা জানিয়েছেন, রাজ্যের অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। তিনি জানিয়েছেন, এই প্রকস্প বাবদ প্রতি বছর ৮০০ কোটি টাকা খরচ হবে রাজ্য প্রশাসনের। তিনি বুধবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানালেন, ‘‘আমরা প্রতিটি মেয়েকে তার বিয়েতে এক তোলা (১০ গ্রাম) সোনা দেব তার বিয়ের সময়। বিয়েটি নিবন্ধভুক্ত হতে হবে। আমাদের লক্ষ্য সোনা দিয়ে ভোট পাওয়া নয়, বিয়েগুলি নিবন্ধভুক্ত করানো।''

‘‘নাগরিকত্বের জন্য ধর্মীয় পরীক্ষা'': অসমের এনআরসি নিয়ে মার্কিন প্যানেল

অসমে প্রতি বছর ৩ লক্ষ বিয়ে হয়। কিন্তু তার মধ্যে মাত্র ৫০,০০০ থেকে ৬০,০০০ বিয়ে নিবন্ধভুক্ত হয় বলে অর্থমন্ত্রী জানাচ্ছেন।

তিনি আশা প্রকাশ করেছেন, এই প্রকল্প চালু হলে ২-২.২৫ লক্ষ বিয়ে নিবন্ধভুক্ত হবে।

‘‘কাশ্মীরে ইন্টারনেট নিষেধাজ্ঞা তোলা হবে সঠিক সময়ে'': রাজ্যসভায় অমিত শাহ

এই প্রকল্পের সুবিধা নিতে গেলে আরও একটি শর্ত হল, কনের পরিবারের বার্ষিক আয় ৫ লক্ষ টাকার কম হতে হবে। এছাড়াও শর্ত হল, কেবল মাত্র প্রথম বিয়ের ক্ষেত্রেই এই সুবিধা পাও?আ যাবে। এবং বিয়েটি স্পেশাল ম্যারেজ অ্যাক্ট, ১৯৫৪ অনুযায়ী হতে হবে। মেয়েটির বয়স হতে ন্যূনতম ১৮। ছেলের বয়স হতে হবে ২১।

নতুন বছরের প্রথম তিন মাস অর্থবর্ষের শেষ ত্রৈমাসিকে ৩০০ কোটি টাকা অসম সরকারের তরফে ধার্য করা হয়েছে এই প্রকল্প বাবদ।

তবে মাধ্যমিক পাশের শর্তটি লাঘব করা হয়েছে চা বাগানের শ্রমিক সম্প্রদায় ও আদিবাসীদের ক্ষেত্রে। ওই সব অঞ্চলে এখনও উচ্চশিক্ষার স্কুল স্থাপিত হয়নি বলে তাদের ছাড় দেওয়া হয়েছে।

তবে সরাসরি সোনা দেওয়া হবে না কাউকে। সরকার নববধূর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ৩০,০০০ টাকা জমা করবে। এরপর গয়না কিনে সেই বিল জমা করতে হবে। অন্য কোনও খাতে ওই অর্থ ব্যবহার করা যাবে না বলে শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
More News