This Article is From Feb 16, 2020

“বিরোধীদের মন্তব্য আমি ক্ষমা করে দিচ্ছি”, অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সেরা ১০ উক্তি

রবিবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী পদে তৃতীয়বার শপথ নিলেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল

রামলীলা ময়দানে রবিবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তৃতীয়বার শপথ গ্রহণ করলেন অরবিন্দ কেজরিয়াল (এএফপি)

নয়াদিল্লি: রামলীলা ময়দানে রবিবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তৃতীয়বার শপথ গ্রহণ করলেন অরবিন্দ কেজরিয়াল, দিল্লির লালকেল্লার বাইরের এলাকায় শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান হয়। এদিন শপথগ্রহণের ভাষণে, দিল্লির জনতাকে জয় উৎসর্গ করেন এবং বলেন, “নির্বাচন শেষ হয়ে গিয়েছে, আপনি যাকেই ভোট দিন না কেন, সেটা কোনও ব্যাপার নয়, আপনি আমার পরিবারের সদস্য। দলীয় বিষয় কখনই আমায় কাজ থেকে বিরত রাখেনি”। তাঁর বিরুদ্ধে যেসমস্ত মন্তব্য করা হয়েছিল, তার জন্য বিরোধীদের ক্ষমা করে দিয়েছেন বলেও জানান কেজরিওয়াল, পাশাপাশি বলেন, দিল্লির উন্নয়নে সবার সঙ্গে কাজ করতে চান তিনি।

অরবিন্দ কেজরিয়ালের সেরা ১০ উক্তি এখানে:

  1. ভোট শেষ  হয়ে গিয়েছে। আপনি যাকেই ভোট দিয়ে থাকুন, সেটা কোনও ব্যাপার নয়। আমি সবার জন্য কাজ করব।
     

  2. আমার বিরুদ্ধে সামগ্রি বিতরণের অভিযোগ তোলা হয়েছে। তবে বিশ্বের সমস্ত কিছু যা ভাল, মায়ের ভালবাসা এবং বাবার আশির্বাদের মতোই, আমি সবার শুভ কামনা করেছি। দিল্লি কেজরিওয়ালকে ভালবাসে। আমি দিল্লিকে ভালবাসি। এই ভালবাসা অমূল্য।
     

  3. দিল্লিতে নয়া ঘরানার রাজনীতি দেখা গিয়েছে। ভাল রাস্তার রাজনীতি, মহল্লা ক্লিনিকের রাজনীতি এবং একবিংশ শতাব্দীর ভারতের রাজনীতি।
     

  4. আমার বিরুদ্ধে সবরকম মন্তব্যের জন্য আমি বিরোধীদের ক্ষমা করে দিচ্ছি। আমি সবাইকে নিয়ে চলতে চাই। আমি একা কাজ করতে পারব না, তবে সবাইকে নিয়ে কাজ করতে পারব।
     

  5. আমি শপথগ্রহণে থাকার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিক আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম। এই মঞ্চের মাধ্যমে আমি দিল্লির জন্য তাঁর আশির্বাদ চাই।
     

  6. ইতিহাস তৈরি করেছেন দিল্লির বাসিন্দারা। আমাদের নীতি সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ছে।
     

  7. রাজনীতিবিদ আসবেন, যাবেন, তবে একটা শহরের উন্নয়ন এবং বৃদ্ধি হয় তার লোকজনদের মাধ্যমে।
     

  8. এটা আমার জয় নয়, এটা প্রত্যেক দিল্লিবাসীর জয়, প্রত্যেকটি পরিবারের জয়। গত পাঁচ বছরে আমরা মানুষকে খুশি রাখার চেষ্টা করে গিয়েছি।
     

  9. গত পাঁচ বছরে আমি সবার জন্য কাজ করেছি। দলের ভিত্তিতে আমি কখনও বিভেদ করিনি।
     

  10. আপনাদের গ্রামবাসীদের গিয়ে বলুন তাঁদের ছেলে মুখ্যমন্ত্রী হয়েছে এবং চিন্তার কোনও কারণ নেই।



.