CAA Protests: এই আন্দোলন গণতন্ত্রের শিকড়কে আরও জোরদার করবে, বললেন প্রণব মুখোপাধ্যায়

Citizenship Amendment Act: কোনও বিষয় নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে মত পোষণ করাটাই স্বাভাবিক, এটাই গণতন্ত্রের মৌলিক উপাদান, মনে করেন দেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি

প্রতিবাদকারীদের "সংবিধানের প্রতি দৃঢ় প্রত্যয় এবং বিশ্বাস" দেখে আনন্দিত হয়েছেন Pranab Mukherjee

হাইলাইটস

  • রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় এবার মুখ খুললেন নাগরিকত্ব আইন নিয়ে
  • সিএএ-বিরোধী আন্দোলন দেশের গণতন্ত্রকে মজবুত করবে বলে মনে করেন তিনি
  • তরুণ প্রজন্ম যেভাবে গণতন্ত্রের প্রতি আস্থা রেখেছে তার প্রশংসা করেন প্রণব
নয়া দিল্লি:

সিএএ বা সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (Citizenship Amendment Act) প্রসঙ্গে এবার মুখ খুললেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। তিনি (Pranab Mukherjee) বলেন, দেশ জুড়ে যে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ চলছে, সেই আন্দোলন গণতন্ত্রের শিকড়কে আরও জোরদার করবে। এই বিক্ষোভ-আন্দোলনের ফলে (CAA Protests) একদিকে যেমন বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়া তরুণদের সংবিধানের প্রতি নিজেদের বিশ্বাস আরও দৃঢ় হয়েছে, অন্যদিকে এই আইন (CAA) নিয়ে মতবিরোধ গণতন্ত্রকে আরও চাঙ্গা করার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। নির্বাচন কমিশন আয়োজিত সুকুমার সেন স্মৃতি অনুষ্ঠানে ভাষণ দিতে গিয়ে প্রণব মুখোপাধ্যায় বলেন, "ভারতীয় গণতন্ত্র প্রতিবারই তার সামনে আসা যে কোনও পরীক্ষায় সফল ভাবে নিজেকে প্রমাণ করেছে । গত কয়েকমাসে মানুষ বিভিন্ন ইস্যুতে রাস্তায় নেমেছেন, বিশেষত দেশের তরুণ প্রজন্ম এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি নিয়ে সোচ্চার হয়েছেন। সংবিধানের প্রতি তাঁদের বিশ্বাস আমাকে আনন্দ দিয়েছে"।

CAA: "আজাদি" স্লোগান দিলেই "দেশদ্রোহী", হুঁশিয়ারি দিলেন যোগী আদিত্যনাথ

দেশে চলতি সিএএ-বিরোধী আন্দোলন সম্পর্কিত কোনও বিষয়কে আলাদা করে উল্লেখ না করেই প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি বলেন, "সংখ্যাগরিষ্ঠের মতই যে কোনো গণতন্ত্রের জীয়নকাঠি। আলোচনা, বিতর্ক এবং বিরোধের মাধ্যমেই গণতন্ত্র সমৃদ্ধ হয়। গত কয়েকমাস ধরে যেভাবে পথে নেমেছেন বহু মানুষ, বিশেষ করে দেশের যুব সমাজ এবং তাঁরা যেভাবে ভারতের সংবিধানের ওপর তাঁদের আস্থা দেখিয়েছেন তা সত্যিই আনন্দদায়ক। আমার মতে, এই আন্দোলনের ফলে আরো দৃঢ় হবে আমাদের দেশের গণতান্ত্রিক শিকড়"। তবে ঠিক এমন সময় এই বক্তব্য রাখলেন দেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি যখন দেশ জুড়ে নাগরিকত্ব আইন এবং এনআরসি নিয়ে আন্দোলন চলছে। ফলে এই সময় তাঁর এই মন্তব্য যথেষ্ট অর্থবহ বলেই মনে করা হচ্ছে।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে আফগানিস্তান, পাকিস্তান, বাংলাদেশ থেকে ২০১৫ সালের আগে আগত অমুসলিম শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। বিরোধীদের মতে, এই আইন বৈষম্যমূলক এবং সংবিধানে বর্ণিত দেশের ধর্মনিরপেক্ষ ভাবমূর্তির পরিপন্থী। কিন্তু নিজেদের জায়গা থেকে সরতে নারাজ কেন্দ্রীয় সরকার। এই দেশে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন প্রয়োগ করা হবে বলেই সাফ জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অমিত শাহ। সম্প্রতি লখনউয়ের সভামঞ্চ থেকে রীতিমতো হুঙ্কার ছেড়ে তাঁকে বলতে শোনা যায় যে, যাই-ই হয়ে যাক না কেন সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন দেশে প্রয়োগ করা হবেই।

Anti-CAA Rally: "নাগরিকত্ব" নিয়ে অমিত শাহকে পাল্টা প্রশ্ন করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

৮৩ বছর বয়সী দেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় ২০১৭ সালের জুলাই মাসে দেশের সর্বোচ্চ পদের দায়িত্ব বর্তমান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের হাতে তুলে দিয়েছিলেন। কিন্তু রাষ্ট্রপতি পদ ছাড়ার পরেও দেখা গেছে কোনও বিতর্কিত বিষয়ে নিজের মতামত জানাতে কখনও পিছপা হননি প্রণব মুখোপাধ্যায়। রাষ্ট্রপতি থাকাকালীনও বেশ কয়েকবার তিনি দেশের ক্রমবর্ধমান হিংসার দৃষ্টান্তের প্রতি জাতির দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন এবং দেশের মানুষকে মূল্যবোধ ও গণতান্ত্রিক সংস্থাগুলির প্রতি শ্রদ্ধার প্রয়োজনীয়তার পাঠ পড়িয়েছিলেন।