This Article is From Feb 14, 2019

মহারাষ্ট্রের বিজেপি বিরোধী জোটে কি থাকবেন রাজ? এমএনএসের ভাবমূর্তি নিয়ে চিন্তায় কংগ্রেস

মহারাষ্ট্রের বিজেপি বিরোধী জোটে কি শেষ পর্যন্ত থাকবে মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা?  কংগ্রেস এবং শরদ পাওয়ারের এনসিপির মধ্যে এ নিয়ে মতপার্থক্য আছে

মহারাষ্ট্রের বিজেপি বিরোধী জোটে কি থাকবেন রাজ? এমএনএসের ভাবমূর্তি নিয়ে  চিন্তায় কংগ্রেস

গত লোকসভা  নির্বাচনে কয়েকটি  কেন্দ্রে ১ থেকে ৯ লাখ পর্যন্ত ভোট পেয়েছিল  রাজের দল

হাইলাইটস

  • কংগ্রেস এবং শরদ পাওয়ারের এনসিপির মধ্যে এ নিয়ে মতপার্থক্য আছে
  • শিবসেনার মতোই এমএনএসকে নিয়ে সমস্যা আছে কংগ্রেসের
  • ভোট ভাগ রুখতেই জোট প্রয়োজন দাবি এনসিপির

মহারাষ্ট্রের বিজেপি বিরোধী জোটে কি শেষ পর্যন্ত থাকবে মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা?  কংগ্রেস এবং শরদ পাওয়ারের এনসিপির মধ্যে এ নিয়ে মতপার্থক্য আছে। জোট করা  নিয়ে আপত্তি আছে  কংগ্রেসের। এরই মাঝে বুধবার এনসিপি প্রধানের ভাইপো অজিত পাওয়ার এমএনএসের নেতাদের সঙ্গে এক ঘণ্টা বৈঠক করলেন । মহারাষ্ট্র থেকে লোকসভায় নির্বাচিত হন ৪৮ জন সাংসদ।  উত্তরপ্রদেশের পর মহারাষ্ট্র থেকেই সবচেয়ে বেশি সাংসদ নির্বাচিত হন। এর মধ্যে দুটি আসনে লড়তে চাইছে  রাজ ঠাকরের দল এমএনএস। এমনিতেই দীর্ঘ দিন ধরে বিজেপির বিরুদ্ধে সরব রাজ।  বিজেপি বিরোধিতার পাশাপাশি  দাদা উদ্ধব ঠাকরেকেও এনডিএ  থেকে বেরিয়ে আসতে বলেছেন তিনি।  শিবসেনার মতোই  এমএনএসকে নিয়ে  সমস্যা  আছে  কংগ্রেসের।

সোনিকার মৃত্যু মামলা থেকে অব্যহতি পাচ্ছেন না অভিনেতা: কলকাতা হাইকোর্ট

বিজেপির বিরুদ্ধে  লড়া  কংগ্রেসের কাছে এমএনএস অস্বস্তির কারণ। কিন্তু অজিত পাওয়ারের দাবি এমএনএসকে  জোটের বাইরে  রাখলে বিজেপি  বিরোধী ভোট ভাগ হওয়ার সম্ভবনা আছে। সংবাদ সংস্থা অজিত বলেছেন, বিজেপিকে পরাস্ত করতে  হলে ধর্মনিরপেক্ষ এবং জনমানসে গ্রহণ যোগ্যতা আছে  এমন সমস্ত  দলকে একজোট হতে হবে। গত লোকসভা  নির্বাচনে কয়েকটি  কেন্দ্রে ১ থেকে ৯ লাখ পর্যন্ত ভোট পেয়েছিল  রাজের দল।

মুলায়মের মন্তব্যে লাভ হবে কংগ্রেসের, দাবি এই নেতার

বিজেপি বিরোধী জোট যাতে বাস্তবায়িত হয় তার জন্য দীর্ঘদিন ধরেই সরব এনসিবি প্রধান। গত এক বছরে একাধিকবার  বিভিন্ন  বিজেপি বিরোধী নেতার সঙ্গে  এনসিপি প্রধান বৈঠক করেছেন। সূত্রের খবর  তিনিও চান এমএনএস এই বিজেপি বিরোধী জোটে যোগ  দিক।  গত বছর রাজের সঙ্গে একই বিমানে সফর করেন পাওয়ার।  সেখানে এই জোট  নিয়ে কথা হয়েছিল বলে খবর। গত মাসে এই জল্পনা আরও বাড়ে।  ছেলের বিয়ে উপলক্ষে দেশের তাবড় নেতাদের  নিমন্ত্রণ করেন  রাজ।  সোনিয়া গান্ধী থেকে শুরু করে রাহুল গান্ধী, লালকৃষ্ণ আদবাণী সকলকে নেমন্তন্ন করা হয়েছিল।  মোদী মন্ত্রিসভার  সদস্যদের উপস্থিত থাকার অনুরোধ করেন রাজ। কিন্তু  প্রধানমন্ত্রীকে বাদ দেন তিনি।