সুপ্রিম কোর্টের অযোধ্যা রায়ের পর কী বললেন আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত ?

Ayodhya Verdict: "আমরা তাঁদের দলে নেই যাঁরা মথুরা ও বেনারসেও মসজিদের জায়গায় মন্দির গড়ার প্রস্তাব দেন", বললেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের প্রধান

সুপ্রিম কোর্টের অযোধ্যা রায়ের পর কী বললেন আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত ?

সুপ্রিম কোর্টের অযোধ্যা রায় নিয়ে সন্তুষ্ট Mohan Bhagwat

নয়া দিল্লি:

অযোধ্যা মামলার (Ayodhya Verdict) সুপ্রিম রায়ে সন্তুষ্ট আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত। রাম জন্মভূমি বিবাদ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের (Supreme Court) সাংবিধানিক বেঞ্চের ঐতিহাসিক রায় ঘোষণার পরে, রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের প্রধান বলেন যে এবার এই সব নিয়ে বিবাদের অবসান ঘটুক এমনটাই চায় সংঘ। অযোধ্যার পরে কাশী ও মথুরাতেও মসজিদের জায়গায় মন্দির গড়া সম্পর্কে ওঠা সওয়াল নিয়ে তাঁকে (Mohan Bhagwat) প্রশ্ন করা হলে তার জবাবে মোহন ভাগবত জানান যে সংঘ (RSS) মানুষ গড়ে তোলে, আন্দোলন করা সংঘের কাজ নয়। অযোধ্যা বিতর্কে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে একটি ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত বলে উল্লেখ করে আরএসএস প্রধান মথুরা ও বেনারসেও রাম মন্দির তৈরির প্রস্তাব নিয়েও নিজের বক্তব্য জানান। তিনি বলেন যে যারা বেনারস ও মথুরায় মসজিদের পরিবর্তে মন্দির তৈরির কথা বলছেন আমরা তাঁদের সঙ্গে যোগ দেব না। সংঘ-প্রধান বলেন যে সংঘের কাজ আন্দোলন করা না, এর কাজ কেবল মানুষের চরিত্র গঠন করা।

সংবিধানের ১৪২ ধারার বিশেষ ক্ষমতা বলেই অযোধ্যা মামলার রায় শীর্ষ আদালতের

পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্ট যে মসজিদ নির্মাণের জন্যে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে ৫ একর জমি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সে ব্যাপারে মোহন ভাগবতকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, মসজিদের জন্যে জমি দেওয়ার সিদ্ধান্ত সম্পর্কে তাঁর বলার কিছু নেই, শীর্ষ আদালতে এ বিষয়ে সরকারকে নির্দেশ দিয়েছে, বিষয়টি তাঁদেরই দেখা উচিত। "আমার কিছু বলার নেই, আদালতের সিদ্ধান্তের মতো আমাদের বক্তব্যও পরিষ্কার", বলেন আরএসএস প্রধান।

এর আগে, রামজন্মভূমি নিয়ে বিরোধের বিষয়ে, সুপ্রিম কোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চ স্পষ্ট করে জানিয়ে দেয় যে এই বিতর্কিত জমিটি ট্রাস্টকে দিয়ে দেওয়া হবে, এবং মন্দির নির্মাণের বিষয়টি ওই ট্রাস্টই দেখভাল করবে।এছাড়াও, মসজিদ নির্মাণের জন্য সরকারকে অযোধ্যাতে ৫ একর জমি দেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দেশের সর্বোচ্চ আদালত এই কাজের জন্য মোট তিন মাস সময় দিয়েছে।

২৬ নভেম্বর অযোধ্যার জমি নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড

শীর্ষ আদালতের সাংবিধানিক বেঞ্চ সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে এটি পরিষ্কার ভাবে জানিয়ে দিয়েছে যে ওই বিতর্কিত জমিতে মন্দিরের ধ্বংসাবশেষের প্রমাণ মিলেছে, তবে এই বিষয়টি স্পষ্ট হয়নি যে মন্দিরটি ভেঙেই সেখানে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছিল। তবে অযোধ্যা মামলার রায়দানের সময় সুপ্রিম কোর্টের ৫ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ বলে যে হিন্দুরা অযোধ্যাকেই রামের জন্মস্থান হিসাবে মেনে এসেছে, তাই তাঁদের এই ধারণাকেও মান্যতা দেওয়া উচিত।

More News