৪৫০-৫০০ জঙ্গি রয়েছে জঙ্গিদের লঞ্চপ্যাডে, খবর সেনা সূত্রে

সোমবার সকালে, সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত জানান, বালাকোটে জঙ্গিঘাঁটি “আবার সক্রিয়” করে তুলেছে পাকিস্তান, ফেব্রুয়ারিতে সেখানে বোমা নিক্ষেপ করেছিল ভারত

৪৫০-৫০০ জঙ্গি রয়েছে জঙ্গিদের লঞ্চপ্যাডে, খবর সেনা সূত্রে

চারদিন আগে বালাকোটে পুনরায় সক্রিয়তার খবর পাওয়া যায়, খবর সূত্রে (ফাইল)

নয়াদিল্লি:

নিয়ন্ত্রণরেখা সংলগ্ন এলাকায় লঞ্চপ্যাডে প্রায় ৫০০ জন জঙ্গি রয়েছে, গত তিনবছরের থেকে এই সংখ্যাটা দ্বিগুণ...ভারতে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করছে তারা, এবং তাদের “সর্বস্তরে, যেকোনও দূরত্বে, যেকোনও জায়গায় জবাব দিতে প্রস্তুত সেনাবাহিনী”, সোমবার এমনটাই জানা গিয়েছে সেনা সূত্রে। এদিন সকালে সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত বলেন, পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলায় ৪০ জন সেনা জওয়ানের মৃত্যুর পরে, ফেব্রুয়ারিতে বালাকোটে ভারতের বিমান হানার পর, সেখানকার জঙ্গি ঘাঁটিগুলিকে “আবারও সক্রিয়” করে তুলেছে পাকিস্তান। সেনাপ্রধান আরও বলেন, নিয়ন্ত্রণরেখা এলাকায় সক্রিয় জঙ্গিঘাঁটিগুলি এবং ভারতে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করছে প্রায় ৫০০ জঙ্গি।

সূত্রের খবর, দিন চারেক আগে, বালাকোটের ঘাঁটি পুনরায় সক্রিয় হয়ে ওঠার খবর পাওয়া যায়। সূত্রের খবর, হুমকির ধরণ, “অন্যান্য বছরের তুলনায় এবারে উৎসবের মরশুমে অনেকবেশী গুরুত্বপূর্ণ”।

বালাকোটে ফের সক্রিয় হচ্ছে জঙ্গি শিবিরগুলি, বললেন সেনাপ্রধান বিপীন রাওয়াত

মনে করা হচ্ছে যে, প্রায় ৬০ জন জঙ্গি, গতদুমাসের বেশী সময়ে, আন্তর্জাতিক সীমান্ত এবং নিয়ন্ত্রণরেখা পার করেছে। জঙ্গিদের জন্য প্রায় চার থেকে পাঁচটি লঞ্চপ্যাড তৈরি বলে মনে করা হচ্ছে।

NDTV কে সেনা সূত্র জানিয়েছে, “আমাদের প্রত্যুত্তর হবে, যে কোনও স্তরে, যে কোনও দূরত্বে, যে কোনও জায়গায়। উপযুক্ত পরিকল্পনা প্রস্তুত রয়েছে”। সূত্র মারফৎ আরও জানা গিয়েছে, “শ্রীনগরের ১৫ কোম্পানি বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে, শুধুমাত্র প্রতিরক্ষার জন্য নয়”।

চার থেকে পাঁচটি জঙ্গি লঞ্চ প্যাড তাদের জন্য প্রস্তুত রয়েছে। বেড়ে চলা কার্যকলাপ, সূত্রের খবর, ৫ অগস্ট জম্মু ও কাশ্মীর থেকে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা প্রত্যাহার করা নিয়ে পদক্ষেপে পাকিস্তানের ক্ষোভ থেকে তৈরি হয়েছে।

সূত্র মারফৎ জানা গিয়েছে, সব জায়গাতেই প্রয়োজনীয় সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

পাকিস্তান আমাদের ক্ষমতা জানে, তবু বারবার অবহেলা করে: এয়ার চিফ মার্শাল

সেনা সূত্রে খবর, “নভেম্বর থেকে জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ কিছু কিছু সেক্টরের ওপর নির্ভর করে শুরু হয়—যেমন গুরেজ, কার্গিল, কেরান, তাংদার, উরি, তুষারপাতের ওপর নির্ভর করে এবং অন্যদিক দিয়ে অনুপ্রবেশ শুরু হয়”।

সোমবার সকালে চেন্নাইয়ে কথা বলার সময়, বালাকোটের জঙ্গি ঘাঁটি “আবারও সক্রিয়” হওয়ায় জবাব, ২৬ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় বায়ুসেনার হামলার মতো নেওয়া হবে কিনা। সেবার পাকিস্তানের অনেক ভিতরে ঢুকে নিয়ে জঙ্গি ঘাঁটিতে বোমা নিক্ষেপ করেছিল ভারতীয় বায়ুসেনা।

সেনাপ্রধান জানান, “আপনারা একই জিনিসের পুনরাবৃত্তি কেন আশা করেন, আমরা আগে অন্য কিছু করেছিলাম, যখন আমরা বালাকোটে হামলা চালাই, কেন আমরা তার পুনরাবৃত্তি করব? কেন কী করা উচিত, তা ভেবে অন্য কিছু চিন্তা করব না? কেন তাকে বলতে যাব, আমরা কী করছি, কেন তাদের অনুমানে রাখব না, কেন পুনরাবৃত্তির কথা বলব, তার বাইরে কিছু নয় কেন”?

More News