প্রবল বৃষ্টিতে ধস নেমে কেরলে প্রাণ হারালেন কুড়ি জন

প্রবল বৃষ্টির জেরে ধস নেমে কেরলে মৃত্যু হল কুড়ি জনের। মৃতের সংখ্যা  আরও বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

এ রাজ্যের বহু প্রাচীন নৌকো প্রতিযোগিতাও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে

কেরল:

প্রবল বৃষ্টির জেরে ধস নেমে কেরলে মৃত্যু হল কুড়ি জনের। মৃতের সংখ্যা  আরও বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। রানওয়েতে জল জমে যাওয়ার  আশাঙ্কায় কোচি বিমান বন্দর বন্ধ করে দেওয়া  হয়েছে।  কোচিতে আসা সমস্ত বিমানকে আপাতত অন্যত্র পাঠিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পরিস্থিতির ওপর নজর রেখে চলেছেন বিমানবন্দরের আধিকারিকরা। পাশের পেরিয়ার নদী থেকে জল ঢুকেতে শুরু করলে সমস্যা আরও বাড়বে। সেক্ষেত্রে দীর্ঘ সময়ের জন্য বন্ধ হয়ে যাবে বিমান বন্দর।     

  কেরলের মধ্যে বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে লুদিক্কি জেলায়। সেখানে প্রাণ হারিয়েছেন এগারো জন। তাছাড়া মালাপ্পুরমে মারা গিয়েছেন ছ’জন। বাকি তিন জনের মধ্যে দু’জনের প্রাণ গিয়েছে কোঝিকোরে। এর মধ্যে  লুদিক্কির আদিমালি শহরে একই পরিবারের পাঁচ জনের প্রাণ গিয়েছে।   

পরিস্থিতি খারাপ হতে থাকায় এনরাকুলাম জেলায় খোলা হয়েছে ত্রাণ শিবির। শুধু মৃত্যু নয় অনেকে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছন।

প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে রাজ্যের বেশ কয়েকটি জায়গায়  বন্যার পরিস্থিতি তৈরী হয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় আটকে পড়া মানুষকে উদ্ধার করতে কাজ করছে এনডিআরএফ। পরিস্থিতি সামাল দিতে এনডিআরএফের আরও দুটি টিম রাজ্যে আসছে। পাশাপাশি উদ্ধার কাজে সেনা নামানোর প্রস্তুতিও শুরু হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী পিনরাই বিজয়ন জানিয়েছেন সেনা এবং এনডিআরএফের সাহায্য নিয়ে পরিস্থিতি মোকাবিলার চেষ্টা হচ্ছে।

রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের স্কুল কলেজ বন্ধ রাখা হয়েছে। পাশাপাশি এ রাজ্যের বহু প্রাচীন নৌকো প্রতিযোগিতাও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।  

 

Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com